মেইন ম্যেনু

যৌথ প্রযোজনার নামে যৌথ প্রতারণা হবে না : শাকিব খান

যৌথ প্রযোজনার একটি সুনির্দিষ্ট নীতিমালা আছে। দুই বাংলার একত্রীকরণের ক্ষেত্রে যৌথ প্রযোজনার নিয়মকানুন কিছুটা পরিবর্তন করা হয়েছে।

কিন্তু সেটা কতোটুকু মেনে চলা হচ্ছে তা নিয়ে রয়েছে বিতর্ক।

এ অবস্থায় ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খান সাত বছর পর বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনার ছবিতে অভিনয় করছেন। জাজ মাল্টিমিডিয়া ও এসকে মুভিজের যৌথ প্রযোজনায় ‘শিকারী’ ছবিতে দেখা যাবে তাকে। সোমবার (৮ মার্চ) রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে এর মহরত অনুষ্ঠিত হয়।

স্বাভাবিকভাবেই শাকিবের কাছে এলো যৌথ প্রযোজনা বিষয়ক নানান প্রশ্ন। কারণ এ ধরনের ছবি নিয়ে তিনি নিজেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন। তাছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে যৌথ প্রযোজনার নামে অভিনয়, গান, টেকনিশিয়ান- সব বিভাগেই ভারতীয়দের আধিক্য দেখা গেছে। অবশ্য ‘শিকারী’র বেলায় এমন হবে না বলে আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

শাকিব বলেছেন, ‘এ ছবিতে বাংলাদেশ ও ভারতের দুই বাংলার শিল্পীদের উপস্থিতি থাকছে সমান। এখন পর্যন্ত সুন্দরভাবে কাজটা এগোচ্ছে। অন্তত এ ছবি নিয়ে যৌথ প্রযোজনার নামে যৌথ প্রতারণার কোনো সুযোগ থাকবে না বলে আমি বিশ্বাস করি। আর নীতিমালা দেখার জন্য কমিটি আছে। নীতিমালা ভঙ্গ হলে কমিটি তো আছেই। তাছাড়া এ পর্যন্ত যৌথ প্রযোজনার অনেক ছবি মুক্তি পেয়েছে, কমিটি তো নিয়মকানুন দেখেই সেগুলোকে সেন্সর ছাড়পত্র দিয়েছে।’

যোগ করে ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’ আরও বলেন, ‘আমি বরাবরই দুই বাংলায় ছবি বিনিময়ের ঘোর বিরোধী ছিলাম। এখনও এর বিরোধীতাই করবো। আমি সবসময় চেয়েছি যৌথ প্রযোজনা হোক। এর সুবিধা হলো দুই বাংলা থেকে প্রযোজকরা লগ্নি করায় বড় বাজেটের ছবি তৈরি সম্ভব হয় অনায়াসে। খরচটা তেমনভাবে কারও গায়েই লাগে না।’

‘শিকারী’ নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে শাকিব বলেন, ‘আমি খুব উচ্ছ্বসিত কাজটা নিয়ে। সবকিছু খুব যত্ন নিয়ে করা হচ্ছে। ছবির গল্প, দুই বাংলার পরিকল্পনা- সব মিলিয়ে যৌথ প্রযোজনায় যতো ছবি হয়েছে, এটাই সবচেয়ে বেশি ব্যবসাসফল হবে বলে আমি খুব আশাবাদী। ভারসাম্য বজায় রেখে দুই বাংলা মিলিয়ে ছবি তৈরির যে প্রচলনটা ছিলো, ‘শিকারী’র মধ্য দিয়ে সেটা আবার বড়ভাবে যাত্রা শুরু করলো।’

জাকির হোসেন সীমান্ত এবং ওপারের জয়দেব মুখার্জির যৌথ পরিচালনায় ছবিটিতে শাকিবের সঙ্গে জুটি বাঁধছেন ওপার বাংলার অভিনেত্রী শ্রাবন্তী। এ ছাড়াও আছেন অমিত হাসান, সুব্রত, মনজুরুল আলম, রেবেকা, শিবা শানু, কলকাতার সব্যসাচী চক্রবর্তী, রুদ্র প্রতাপলিলি চক্রবর্তী, সুপ্রিয় দত্ত, খরাজ মুখার্জি ও রাহুল দেব রয়।

‘শিকারী’র কাহিনী লিখেছেন আবদুল্লাহ জহির বাবু ও কলকাতার পেলে চ্যাটার্জি। কলকাতায় এর দৃশ্যধারণ শুরু হবে আগামী ১৪ মার্চ। এ ছবির অনলাইন ও ডিজিটাল কন্টেন্ট পার্টনার লাইভ টেকনোলজি।