মেইন ম্যেনু

রমজানকে সামনে রেখে টেকনাফে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে

ফয়েজুল ইসলাম রানা, টেকনাফ থেকে : টেকনাফ উপজেলায় রমজান না আসার আগেই রমজানে ব্যবহার্য জিনিসপত্রের দাম হু-হু করে বেড়ে যাচ্ছে। যে হারে দাম বাড়ছে তা অব্যাহত থাকলে দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী অনেক লোকজন পবিত্র রমজান থেকে বঞ্চিত হবেন। টেকনাফ উপজেলা ও পৌর এলাকার বিভিন্ন হাট বাজার ঘুরে দেখা যায়, রমজানে ব্যবহার্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম খুবই চড়া। ছোলা বা চনা প্রতিকেজি ৯০টাকা হতে ১০০টাকা। রসুন ২৫০টাকা হতে ২৮০টাকা, আদা ১৫০টাকা, সয়াবিনতেল রূপচাঁদা ৫কেজি ওজনের দাম ৪৫০টাকা হতে ৫০০টাকা। মসুর ডাল প্রতিকেজি ১৬০টাকা হতে ২০০টাকা, চিনি প্রতিকেজি ৬০হতে ৭০টাকা, গুড়ো দুধ প্রতিকেজি ৮০০হতে ১০০০টাকা। এ ছাড়া মাছ মাংসের দাম দিন দিন উর্ধগতিতে। মাংস প্রতিকেজি ৫০০হতে ৬০০টাকা, ছাগল ১০০০হতে ১১০০টাকা, মুরগী দেশী প্রতিকেজি ৩০০হতে ৩৫০টাকা, ফার্ম মুরগী প্রতিকেজি ১৮০হতে ২০০টাকা, ছোট মাছ ৩০০ হতে ৩৫০টাকা, বিভিন্ন প্রকার বড় মাছ প্রতিকেজি ৬০০হতে ৮০০টাকা, ডিম প্রতি হালি ৪৮টাকা হতে ৫০টাকা, সবজি বাজারে আগুন। দিন দিন বাড়ছে সবজির দাম। কাকরল ৬০হতে ৭০টাকা, তিতকরল ৫০হতে ৬০টাকা, পটল প্রতিকেজি ৫০হতে ৬০টাকা, টমেটো প্রতিকেজি ২০০টাকা, লেবু ছোট প্রতিটি ৫টাকা, বড় ১০হতে ১৫টাকা, আলু প্রতিকেজি ৩০হতে ৩৫টাকা। রমজানে ব্যবহার্য ইফতারের প্রধান আইটেম হচ্ছে কলা। এ কলার দাম অত্যান্ত চড়া। বর্তমানে দেশী প্রতি হালি কলা ছোট ৩৫হতে ৪০টাকা, বড় ৫০হতে ৬০টাকা। সাগরকলা প্রতিহালি ৪০হতে ৪৫টাকা। এরপর রয়েছে খেজুর। খেজুর ভাল প্রতিকেজি ৫০০হতে ৬০০টাকা। এর পাশাপাশি পানীয় দ্রব্যের দাম দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেভেন আপ, কোকাকোলা, পেপসি ও অন্যান্য পানীয় দ্রব্যের দাম আকাশ ছোঁয়া। এ সমস্ত দ্রব্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে না পারলে আসন্ন রমজানে দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত লোকজন পবিত্র রোজা রাখকে খুবই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে বলে জানান স্থানীয় সচেতন মহল। যেহেতু মফস্বল এলাকায় টিসিবির মাধ্যমে সরকার কোন জিনিসপত্র বিক্রি করেনা। সে কারনে মুনাফাকোরী দোকানদার রমজানকে সামনে রেখে গলা কাটা ব্যাণিজ্য আরম্ব করে। এ ব্যাপারে রমজান না আসার আগেই প্রতিটি নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম প্রতিটি দোকানে মূল্য তালিকা প্রদর্শনের ব্যবস্থা করণের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের প্রতি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকার লোকজন।