মেইন ম্যেনু

রাউজানে দরিদ্র ইলেকট্রিশানকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ

চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার সুলতানপুরে এক দরিদ্র ইলেকট্রিশানকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ উঠেছে।
রাউজান পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের সুলতানপুর এম এ হাশেমের বাড়ীর ছগির আহম্মদের পুত্র ইলেকট্রিশান আবু বক্কর ইলেকট্রিশানের কাজ করে জিবিকা নির্বাহ করেন। দরিদ্র ইলেট্রিশান আবু বক্কর রাউজানের উত্তর গুজরা আয়েশা বিবির বাড়ীর ফুল মিয়ার কন্যা তাসমিন আকতারকে গত ২০০৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর বিয়ে করেন। বিবাহের পর থেকে তাসমিনা আকতারের সাথে আবু ব্ক্করের ঝগড়া বিবাধ চলে প্রতিনিয়ত ।

দরিদ্র ইলেকট্রিশান আবু বক্কর অভিযোগ করে বলেন, এলাকার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বিরোধ নিরসনে একাধিকবার সালিসি বৈঠক করেন। এলাকার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সালিশি বৈঠক না মেনে রাউজান থানায় প্রথমে রাউজান থানায় মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগ এনে তাসমিন আকতার অভিযোগ করলে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে গত ২০১৩ সালের ২৭ জুলাই বৈঠক করে বিরোধ নিরসন করা হয় । এই ঘটনার পর দমে থাকেনি তাসমিন আকতার তাসমিন আকতার পরবর্তী দরিদ্র ইলেট্রিশান আবু ব্ক্কর ও তার ভাই সেলিম সহ তার পরিবারের বিরুদ্বে রাউজান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন । নারী ও শিশু মামলা নং- ৩৭৯/১৫ । এই মামলার রায়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল নং-২ চট্টগ্রামের বিচারক জেলা দায়রা জজ মীর শফিকুল আলমের আদালতে গত ৬ জুন মামলাটি মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায় মামলাটি খারিজ করে দেয় ।

তাসমিন আকতার পরবর্তী সময়ে স্বামী আবু বক্কর ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্বে রাউজান পৌরসভায় অভিযোগ করেন । রাউজান পৌরসভায় অবিযোগ করার পর রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান নেটিশ দিয়ে ঊভয় পক্ষকে পৌর পরিষদে ডাকা হয় । প্রথম তারিখে তাসমিন আকতার উপস্থিত হলে ও পরবর্তী তারিখে পৌর পরিষদে উপস্থিত না হয়ে তাসমিন আকতারের প্রতিনিধি হিসাবে তাসমিন আকতারের ভগ্নিপতি আবু বক্করকে পাঠায় । তাসমিনের ভগ্নিপতি আবু বক্কর পৌর পরিষদের কোন বিচার মানেনা বলে জানালে ।

গত ১২ এপ্রিল রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান তাসমিন আকতার একজন দুষ্ট প্রকৃতির মেয়ে বলে উল্লেখ করে বিভিন্ন ছলচাতুরী করে মিথ্যা ও বানোয়াট অবিযোগ ও মামলা দিয়ে আবু বক্কর তার পরিবারের সদস্যদের হয়রানী করছেন বলে অভিযোগের রায় প্রদান করেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এম এ হাশেম, ওসমান, জানে আলম চৌধুরী, আবুল কাসেমের উপস্থিতিতে । আবু বক্কর তাসমিনা আকতারের নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় অতিষ্ট হয়ে গত ৫ এপ্রিল নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে তাসমিনা আকতারকে তালাক প্রদান করে মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই পাওয়ার আশায় । আবু বক্করের বসতভিটায় তাসমিন আকতারের নামে নেওয়া বসত ভিটা ও ঘর বাড়ীর অংশ স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আজাদ হোসেন সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পরিমাপ করে বুঝিয়ে দেওয়ার পর ও তাসমিন আকতার তার ভগ্নি পতি আবু বক্কর প্রতিনিয়ত তাসমিন আকতারকে তালাক দেওয়া স্বামী আবু বক্করের বসতঘরে গিয়ে হামলা করে দরিদ্র ইলেকট্রিশান আবু বক্কর ও তার ভাই সেলিম প্রকাশ বাচাঁ ও তাদের পরিবারের অনান্য সদস্যদের উপর হামলা করে বলে এম এ হাশেমের বাড়ীর বদিউল আলম সওদাগর, ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলী, জানান।

সর্ব শেষ তাসমিন আকতার গত ১১ আগষ্ট চট্টগ্রাম জুডিশিয়াল ম্যজিষ্ট্রেটের আদালতে আবু ব্ক্কর ও তার ভাই সেলিম প্রকাশ বাচাঁ, সেলিমের স্ত্রী শামু আকতারকে আসামী আবারো একটি মামলা দায়ের করেন । মামলা নং- ৯৯/১৫ । মামলার আরজিতে তাসনি আকতার গত ৮ আগষ্ট সকাল এগারটার সময় তাসনি আকতারকে মারধর ও শ্লীলতাহানী, তাসমিন আকতারের বোনের কন্যা হেছনা চৌধুরী, তাসমিনের বোন দিলরুবা খানমকে মারধর করে তাদের কাছ থেকে স্বর্ণলংকার সহ তাসমিনের ঘর থেকে মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে মামলটি হাটহাজারী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ঘটনার বিষয়ে অনুসন্দ্বান করে ২৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ প্রদান করেন । এই ঘটনার বিষয়ে প্রতিবেশী বদিউল আলম সওদাগর সহ এলাকার লোকজনের কাছে জানতে চাইলে তারা ঘটনাটি সাজানো বলে উল্লেখ করেন ।