মেইন ম্যেনু

রাজধানীতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ, তীব্র যানজট

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট আরোপের প্রতিবাদে আজও ইস্ট ওয়েস্টের ছাত্ররা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে। ধানমন্ডি-২৭ এও সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে স্ট্যামফোর্ডের শিক্ষার্থীরা। রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ দু্ই জায়গায় সড়ক অবরোধের ফলে রাজধানীজুড়ে শুরু হয়েছে তীব্র যানজট। এমনিতেই সপ্তাহের শেষ কর্মদিবস হিসেবে গাড়ির চাপ একটু বেশি থাকে তার উপরে ছাত্রছাত্রীদের এ অবরোধের ফলে যানজটের তীব্রতা ভয়াবহ রুপ নিয়েছে।

আজ বেলা ১১টা থেকে ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের রামপুরার আফতাবনগর ক্যাম্পাসের সামনের রাস্তায় এসে অবস্থান নেয়। এরপর ধানমন্ডিতে সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা।

গতকালও ইস্ট ওয়েস্টের শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে। এ নিয়ে গতকাল বিকালে পুলিশের সঙ্গে ছাত্র-ছাত্রীদের সংঘর্ষ হয় এবং তাতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। পরে রাত নয়টার দিকে ছাত্র-ছাত্রীরা বাসায় ফিরে গেলেও আজ বেলা ১১টা থেকে তারা আবার ফিরে আসে।

গুরুত্বপূর্ণ এই দুই মহাসড়কটি অবরোধ করে রাখার কারনে রাজধানীতে ব্যাপক যানজট সৃষ্টি হয়েছে। বিমানবন্দরমুখী রামপুরা ও ধানমন্ডি খুবই ব্যস্ততম সড়ক। অবরোধের ফলে আশপাশের রাস্তায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যার প্রভাব পড়ছে রাজধানীজুড়ে।

এছাড়া উত্তরার হাউজ বিল্ডিং মোড়, বসুন্ধরা আবাসিক গেইট ও বনানীতে বিক্ষোভ করার কথা রয়েছে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

গতকালও অবরোধের কারণে রামপুরা ও এর আশপাশের এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশ শিক্ষার্থীদেরকে রাস্তা থেকে সরাতে গেলে উভয়ের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পরে শিক্ষার্থীরা ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির প্রধান ফটকের সামনের সড়কে অবস্থান নেয়। রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত ছাত্ররা রাস্তা দখল করে বিক্ষোভ করে। পরে রাত নয়টার দিকে ছাত্ররা অবরোধ প্রত্যাহার করে ঘরে ফিরে।

শিক্ষার্থীদের দাবি, পুলিশ তাদের ওপর গুলি ছুড়েছে। তবে পুলিশ এটা অস্বীকার করেছে।

গুলশান জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার মোস্তাক আহমেদ বলেন, শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ সময় ধরে রামপুরা সড়ক অবরোধ করে রাখে। এতে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হলে তাদের সরিয়ে দেয়া হয়। লাঠিচার্জ কিংবা গুলি ছোড়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি।

প্রসঙ্গত, নতুন করে চলতি অর্থবছরের বাজেটে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ফি’র সঙ্গে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। অবশ্য শুরুতে ১০ শতাংশ ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হলেও পরে তা সাড়ে ৭ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়। শুরু থেকে সরকারের এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে শিক্ষার্থীরা।