মেইন ম্যেনু

রাজধানীর রেস্তোরাঁয় মানুষ ঠকানোর নতুন কৌশল!

রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের ফুড ভিলেজ রেস্তোরাঁয় পানির দাম দিয়ে ভোক্তাদের ঠকানোর নতুন কৌশল অবলম্বনের অভিযোগ উঠেছে। কৌশল করে পানির দামের সঙ্গে সার্ভিস চার্জ (এসসি) যুক্ত করে বাড়তি দাম নেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অবস্থিত ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে শুভ্র নামের এক আইনজীবী অভিযোগ করলেও আজ সোমবার তা নিষ্পত্তি করা হয়।

ওই আইনজীবীর কাছ থেকে পানির দাম বেশি রাখার কারণে তিনি ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করেছিলেন। কিন্তু অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আফরোজা রহমান পানির দাম বেশি রাখা হয়নি বলে অভিযোগটি নিষ্পত্তি করে দেন।

এ বিষয়ে শুভ্র জানান, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি তিনি রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের ফুড ভিলেজ রেস্তোরাঁয় খেতে যান। সেখানে তাঁর কাছে প্রত্যেকটি খাবারের উচ্চ মূল্য রাখা হয়। এ ছাড়া খাবারে বাড়তি তেল এবং মানসম্মত নয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

ওই আইনজীবী আরো জানান, খাবার শেষে মূল্য রসিদ দেওয়া হলে তিনি দেখেন, বোতলের গায়ে ১৫ টাকার দাম লেখা থাকলেও পানির দাম ২০ টাকা রাখা হয়। এ বিষয়ে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষকে জানানো হলে তাঁরা পানির দাম ২০ টাকা বলে জানায়। তবে সার্ভিস চার্জের কথা ওই সময় হোটেল কর্তৃপক্ষ বলেনি।

পরবর্তী সময়ে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের ওপর আজ শুনানি হলে ভোক্তা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আফরোজা রহমান জানান, পানির দামের সঙ্গে সার্ভিস চার্জ রাখা হয়েছে, তাই অভিযোগটি নিষ্পত্তি করা হলো। এখানে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ সঠিক দামই রেখেছেন!