মেইন ম্যেনু

রাজন হত্যা: ওসি প্রত্যাহার, দুই এসআই বরখাস্ত

সিলেটে বর্বরোচিতভাবে ১৩ বছরের কিশোর সামিউল আলম রাজন হত্যাকাণ্ডের পর মামলায় গাফলতি এবং প্রকৃত খুনিদের বাঁচানোর চেষ্টার অভিযোগে জালালাবাদ থানার (ওসি-তদন্ত) আলমগীর হোসেনকে প্রত্যাহার এবং উপপরিদর্শক (এসআই) আমিনুল ইসলাম ও জাকিরকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সামিউল হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তে গঠিত কমিটির প্রতিবেদনে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় শুক্রবার বিকেলে ওই তিন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলো।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. রহমত উল্লাহ।

প্রসঙ্গত, গত ৮ জুলাই সিলেট শহরতলির কুমারগাঁওয়ে সামিউল হত্যাকাণ্ডের পর তার বাবা আজিজুর রহমানের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে জালালাবাদ থানার ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। এ ছাড়া অর্থের বিনিময়ে সামিউলের প্রকৃত খুনিদের বাঁচানোর চেষ্টার অভিযোগ ওই পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে করেন আজিজুর রহমান।

এর প্রেক্ষিতে গত ১৪ জুলাই ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার কথা ছিল। তবে তদন্ত শেষ না হওয়ায় প্রতিবেদন জমা দেওয়ার মেয়াদ আরো পাঁচদিন বাড়ানো হয়।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন মহানগর পুলিশ কমিশনার কামরুল আহসানের কাছে জমা দেয়।

তদন্ত কমিটিতে ছিলেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. রোকন উদ্দিন, অতিরিক্ত উপকমিশনার (দক্ষিণ) জেদান আল মুসা ও উপকমিশনার মুশফিকুর রহমান।