মেইন ম্যেনু

বাড়ীর নিশানা মিছে দিতে লাগানো হয়েছে আমের গাছ

রাণীনগরে ভূমিহীনের বাড়ী গুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় একদিন পর মামলা দায়ের ॥ গ্রেফতার -৩

নওগাঁর রাণীনগরে ভূমিহীনের বাড়ী ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় এক দিন পর মামলা দায়ের করা হয়েছে । মামলার প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ ঘটনার মূল হোতা আলম হোসেনসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে গত বুধবার সকালে বাড়ী ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়ার ওই স্থানে আমের বেশ কিছু গাছ লাগিয়ে বাড়ীর নিশানা মিছে দেয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে ।

স্থানীয় ও মামলা সুত্রে জানাগেছে,উপজেলার ভাটকৈ গ্রামের মৃত বাবর আলীর ছেলে বাস্তহারা হামিদুল ইসলাম বাহাদুর গত ৮-১০ বছর আগে ভাটকৈ পৌঁয়াতা মৌজায় ১ নং খাস খতিয়ান ভুক্ত পুকুর পারে মাত্র পাঁচ শতক জায়গার উপর মাটিদ্বারা দুটি কক্ষ নির্মান করে টিনের ছাউনি দিয়ে কোন রকমে স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। এমতবস্থায় গত দেড় বছর আগে হামিদুল ইসলাম বাহাদুর ওই জায়গা পত্তনের জন্য রাণীনগর ভূমি অফিসে আবেদন করে।

আবেদনের প্রেক্ষিতে সার্ভেয়ার তদন্তও হয়েছে। এরই মধ্যে একই গ্রামের মছির উদ্দেিনর ছেলে আলম হোসেন ওই জায়গার মালিকানা দাবি করে বিভিন্ন ভাবে হয়রান করতে থাকে। এক পর্যায়ে গত মঙ্গলবার রাতে ভূমিহীন হামিদুলের একটি খড়ের পালায় আগুন দেয়ার ঘটনায় বুধবার আলম সহ কয়েকজনকে জরিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন বাহাদুর।

অভিযোগের ৭ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশের রহস্যজন ভূমিকার মধ্যে দিয়ে গত মঙ্গলবার সকাল অনুমান সাড়ে ৬ টায় আলম তার দলবল নিয়ে হামিদুলের বাড়িতে হামলা চালিয়ে মারপিট করে মাটির দুটি কক্ষ সম্পূর্ন ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশে দিয়েছে। এদিকে ঘটনার পরদিন বুধবার সকালে আলম ও তার লোকজন আবারো ওই জায়গায় এসে পলিথিন দিয়ে ডেকে রাখা ধান/চাল আসবাবপত্র ভাঙ্গচুর করে ওই জায়গার উপর নির্মিত ঘরের নিসানা মিছে দিতে সেখানে বেশ কিছু আমের চারাগাছ লাগানো হয়েছে বলে হামিদুল ইসলাম বাহাদুর জানান।

এ ঘটনায় বাহাদুর বাদী হয়ে গত বুধবার সন্ধ্যায় আলমসহ ২০ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে এস.আই মহসিন ও এস.আই জাহাঙ্গীর আলম সঙ্গীয় ফোর্সসহ অভিযান চালিয়ে রাতেই আলম (৫৫),তার ছেলে রবিন (২২) ও একই গ্রামের আবুল হোসেন (৫৮) কে গ্রেফতার করেছে।

এব্যাপারে রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরী জানান, মূলহোতা আলমসহ ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাতকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।