মেইন ম্যেনু

পুলিশকে না জানিয়ে গোপনে লাশ দাফনের আভিযোগ

রাণীনগরে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু

নওগাঁর রাণীনগরে বেদগাড়ী-আত্রাই সড়কের নান্দাইবাড়ী নামক স্থানে নওগাঁ থেকে আত্রাই গামী এক মোটরসাইকেল আরোহী বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে যাওয়ার সময় জায়দা বেগম (৬৫) কে স্ব-জোরে ধাক্কা দিয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় ফেলে রেখে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। কিছু পরে পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার চেষ্টা করতেই সে মারা যায়। বিষয়টি থানা পুলিশকে না জানিয়ে গোপনে লাশ দাফন সম্পূর্ণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, উপজেলার নান্দাইবাড়ী গ্রামের মৃত সুবলের স্ত্রী জায়দা বেগম (৬৫) গত সোমবার অনুমান সন্ধ্যা ৭ টার দিকে বেদগাড়ী-আত্রাই সড়ক দিয়ে হেটে নিজ বাড়িতে আসার সময় নওগাঁ থেকে আত্রাই গামী বেপরোয়া গতিতে চলা মোটরসাইকেল আরোহী ঘটনাস্থলে এসে বৃদ্ধাকে স্ব-জোরে ধাক্কা দিলে সাথে সাথে সে গুরুতর আহত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

সন্ধ্যার কারনে আশে-পাশে কোন লোকজন না থাকায় দ্রুত গতিতে মোটরসাইকেল আরোহী আত্রাই উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মৃত জান্টু প্রাং এর ছেলে সুমন (৩৩) ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। কিছু পরে পথচারী ও প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে জায়দা বেগমকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার প্রস্তুতি নিতেই আহত জায়দা বেগম মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

ঐ রাতেই স্থানীয় কিছু মোড়ল ও মোটরসাইকেল আরোহী সুমনের লোকজনেরা রাণীনগর থানা পুলিশকে অবহিত না করে রাতভর দেন দরবার শেষে যথাযথ সমাধান না হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে আবার উভয়ের মধ্যে বৈঠক বসলে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে মিমাংসা হওয়ায় মঙ্গলবার বাদ জোহর নান্দাইবাড়ী গ্রামে জায়দার নামাজে জানাজ শেষে পারিবারিক গোরস্তানে তাঁর দাফন সম্পর্ণ করা হয়।

এ ব্যাপারে রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরী জানান, মোটরসাইকেল ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যুর প্রায় ২৪ঘন্টা পার হলেও আমাকে না জানিয়ে লাশ দাফন করে ঘটনাটি ধামা-চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছে। বিষয়টি আমি অবশ্যই খতিয়ে দেখববো।