মেইন ম্যেনু

রাতে ছেলের হাতে মার, সকালে বাবার ঝুলন্ত লাশ

ছেলের হাতের মার খেয়ে লজ্জা ও অপমানে বৃদ্ধ এক বাবা আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সকালে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বাজুবাঘা গ্রামের একটি গাছের সঙ্গে বাবা সেকেন্দার আলীর (৬৫) ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়।

বাঘা থানার পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে বিকেলে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে। তাঁর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে সুরতহাল প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে পুলিশ।

পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে রাজশাহীর বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী মাহমুদ জানান, মঙ্গলবার তারাবির নামাজ পড়ে বাড়িতে যান সেকেন্দার আলী। কিন্তু রাতের খাবার নিয়ে তাঁর সঙ্গে স্ত্রীর ঝগড়া হয়। এ সময় মায়ের পক্ষ নিয়ে ছেলে টুটুল আলী বাবাকে মারধর করে খাবারের প্লেট কেড়ে নেন। এ ঘটনার পর তিনি অভিমান করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান।

বুধবার সকালে গ্রামের বাদশা নামের এক ব্যক্তি মাঠে যাওয়ার সময় বাড়ি থেকে ৫০০ গজ দূরে আমগাছের সঙ্গে সেকেন্দারের ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান। এ সময় তাঁর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে যান। পরে তাঁরা থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি আলী মাহমুদ জানান, মৃতদেহের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। কিন্তু ঘটনার পর ছেলে টুটুল তাঁর বাবাকে মারধরের কথা অস্বীকার করেছেন। এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে বলে জানান ওসি।