মেইন ম্যেনু

ভোগান্তির অবসান

রামেকে ১২ কোটি টাকা মূল্যের স্ক্যান মেশিন

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সিটি স্ক্যান মেশিন দীর্ঘ ৪ বছর ধরে অকেজো রয়েছে। এর ফলে এ হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসা রোগীরা ভোগান্তির মধ্যে রয়েছেন। এ ভোগান্তির অবসান ঘটাতে রামেকে স্ক্যানের জন্য একটি মেশিন আনা হচ্ছে।

এটি ইউএস-এর ফিলিপস কোম্পানির এবং এর ব্যয় আনুমানিক ১২ কোটি টাকা।

এর ফলে এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর সিটি স্ক্যানের প্রয়োজন হলে, আর বাইরে স্ক্যান করতে হবে না। ফলে রোগীদেও গুনতে হবে না বাড়তি অর্থ। কারণ, বাইরের ক্লিনিকগুলোতে সিটি স্ক্যান করতে গেলে আড়াই হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয়। আর হাসপাতালে স্ক্যান করালে খরচ হবে অর্ধেকেরও কম।

রামেক হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কেএম নাসির উদ্দিন বলেন, আগামী ৩১ জুলাই অত্যাধুনিক ও উন্নমানের নতুন সিটি স্ক্যান মেশিন বাংলাদেশে এসে পৌঁছাবে। এর আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি চলে এসেছে এবং আগামী আগষ্ট মাসে এর কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে।

মেশিনটি রামেক হাসপাতালে স্থাপন করতে দ্রুত কাজ এগিয়ে চলেছে। জেনারেটর ও পাওয়ার সাব ষ্টেশনের কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে। এই মেশিনটি উন্নতমানের, যা ৬৪টি এঙ্গেল থেকে ছবি তুলতে সক্ষম।

তিনি আরো বলেন, পূর্বের মেশিনটি থেকে মাত্র একটি এঙ্গেল থেকে ছবি তোলা যেত। আর এই উন্নতমানের মেশিনটি মানুষের শরিরের ৬৪টি এঙ্গেল স্ক্যান করবে। রোগীদের যেকোনো সমস্যার ছবি আগে শুধুমাত্র একটি এঙ্গেল থেকে তোলা হতো। এর ফলে রোগ সনাক্ত করতে বেশি সময়ের প্রয়োজন হতো।

একারণে রোগীদের দুর্ভোগ বাড়তো। আর এখন যেকোনো অঙ্গের যেভাবে প্রয়োজন সেভাবে স্ক্যান করা সম্ভব হবে।