মেইন ম্যেনু

রিজার্ভে দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয় বাংলাদেশ

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের দিক দিয়ে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি।

রোববার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লার এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, বাংলাদেশের অর্থনীতি ও দারিদ্র্য দূরীকরণে রেমিটেন্স প্রধান চালিকাশক্তি। রেমিটেন্সের উচ্চ প্রবাহের কারণে বর্তমানে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৭ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয়।

ঢাকা-৭ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিমের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসাবান্ধব। ব্যবসা ভাল চলছে। ব্যবসায়ীরা খুবই খুশি। খালেদা জিয়ার জ্বালাও-পোড়াওয়ের পরেও দেশের ব্যবসা ভাল চলছে।

এর আগে প্রশ্নকর্তা মন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, লবণ আমদানি করার ফলে লবণ চাষীদের মাথায় বাঁশ পড়েছে। আপনি লাখ লাখ টন লবণ আমদানি করছেন। কিন্তু দেশের লবণ চাষিদের কী ব্যবস্থা করছেন? তাদের কী হবে? ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ঋণখেলাপি হচ্ছে।

জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমি এতোদিন জানতাম মাননীয় সংসদ সদস্য হাজী সেলিম ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কে ভাল জানেন। কিন্তু উনি যে প্রশ্ন করলেন তাতে আমি মর্মাহত। উনি বলেছেন লাখ, লাখ টন লবণ আমদানি করা হচ্ছে। তথ্যটি মোটেই সঠিক নয়।

মন্ত্রী বলেন, আমরা এবারই ঈদুল আজহার আগে মাত্র এক লাখ টন লবণ আমদানি করেছি। তাও প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নিয়ে। তাছাড়া আমদানির আগে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক ও লবণ চাষিদের সঙ্গে আলোচনা করেই করা হয়েছিল। ব্যবসায়ী ও জেলা প্রশাসকদের মত ছিল দুই লাখ টন লবণ আমদানি করার। আমরা মাত্র এক লাখ টন আমদানি করেছি। এতে ব্যবসায়ীদের কোনো সমস্যা হয়নি। উনি ভুল তথ্য দিয়েছেন।

ব্যবসায়ীদের ঋণখেলাপি প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কেউ যদি ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে সময়মতো পরিশোধ না করেন, তাহলে তো কিছু সমস্যা হতেই পারে। তারপরেও বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যবসায়ীদের বিষয়ে নমনীয়।