মেইন ম্যেনু

রিজার্ভ চুরির বিস্তারিত জানতে চায় মানুষ

সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা লুটের বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্য ব্যাখ্যা দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। একইসঙ্গে ওই ঘটনায় জড়িতদের বিচারের আওতায় আনারও দাবি জানিয়েছে দলটি।

দলের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারের প্রতি এমন আহ্বান জানিয়ে বলেছেন,‘রিজার্ভ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ কীভাবে চুরি হলো তা জাতি জানতে চায়। রাজকোষ থেকে এমন টাকা লুটের ঘটনা ব্যাংকিং খাতের নিরাপত্তা ও জাতীয় সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত।’

মঙ্গলবার রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ১০১ মিলিয়ন ডলার (৮০০ কোটি টাকা) লুণ্ঠনের একটি বিশ্লেষণাত্মক পর্যালোচনা নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। লাখো শহীদের রক্ত, অসংখ্য মা-বোনের সম্ভ্রম ও মানুষের ত্যাগ তিতীক্ষার বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা লাভ করি। পরবর্তিতে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের দুরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্বের মধ্য দিয়ে ১৯৭৪ সালে তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে একটি গতিশীল অর্থনীতিতে পরিণত করেছে জনগণ। কিন্তু দুর্ভাগ্য আমাদের,বর্তমান সরকার ক্ষমতার আসার পর থেকে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে। সরকারের অযোগ্যতা ও দুর্নীতির কারণে তাদের আমলে হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট হয়েছে।’

একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, ‘এই সরকারের আমলে ৩০ হাজার কোটি টাকা লুণ্ঠণ হয়েছে। সবশেষ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা লুট হয়েছে। অথচ সরকার এখনো এ বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্য ব্যাখ্যা দিতে পারেনি।’

সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে রিজার্ভ থেকে টাকা লুটের ঘটনা উদঘাটন ও দায়িদের চিহ্নিত করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন,‘এই ঘটনায় শুধু গভর্নরের পদত্যাগই যথেষ্ট নয়। সরকার কোনোভাবে এর দায় এড়াতে পারে না ।’

এ বিষয়ে নিজের দলের অবস্থান তুলে ধরে ফখরুল এই ঘটনার যথাযথ তদন্ত করে কিভাবে এই লুটের ঘটনা ঘটলো এবং কারা জড়িত তা জনগণের সামনে তুলে ধরা এবং গণমাধ্যমে প্রকাশের দাবি জানান।

গত প্রায় দুই মাস আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে গচ্ছিত ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার লোপাট হওয়ার পর এ নিয়ে বিএনপি এই প্রথম ঘটা করে সংবাদ সম্মেলন করলো।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থচুরির ঘটনার একটি বিশ্লেষণাত্মক পর্যালোচনা তুলে ধরেন।

পরে এ বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রস্তুত করে তা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থাপন করেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য শ্যামা ওবায়েদ।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসূফ, আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, ইনাম আহমেদ চেীধুরী, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, অধ্যাপক এম এ মান্নান, অর্থনীতিবিদ মাহবুব উল্লাহ, সাংবাদিক মাহফুজুল্লাহ প্রমুখ।