মেইন ম্যেনু

‘রিভিউ না-ও করতে পারেন নিজামী’

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, নিজামী যদি মনে করেন রিভিউ করে অন্যরা কোনো ফল পাননি, সে ক্ষেত্রে তিনি রিভিউ না-ও করতে পারেন।

বুধবার নিজামীর ফাঁসির রায় ঘোষণার পর সুপ্রিম কোর্টে নিজ কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে বলতে পারছি না রিভিউ আবেদন করা হবে কি না। আপিলের রায় পর্যালোচনা করে নিজামী যদি মনে করেন রিভিউ আবেদন করবেন, তাহলে রিভিউ করা হবে। আবার নিজামী যদি মনে করেন রিভিউ করে অন্যরা কোনো ফল পাননি, সে ক্ষেত্রে তিনি রিভিউ না-ও করতে পারেন।’

খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘আইনজীবী হিসেবে সর্বোচ্চ আদালতের রায় মেনে নিয়েছি। কিন্তু যিনি দণ্ডপ্রাপ্ত হয়েছেন তিনি মেনে নেবেন কি না, সেটা সম্পূর্ণ তার ব্যাপার।’

তিনি আরো বলেন, আমরা আদালতে বলেছিলাম, যেহেতু প্রধান আসামিদের (পাকিস্তানি সেনাবাহিনী) ক্ষমা করে দেওয়া হয়েছে, সেহেতু সহযোগী আসামিকে (নিজামী) চরম দণ্ড দেওয়া যায় না। এ ছাড়া নিজামী বয়স্ক ও ট্রাইব্যুনালের রায়ে তাকে ‘ইসলামিক স্কলার্স’ হিসেবে উল্লেখ করেছে, তাই তাকে সাজা দেওয়া হলেও যেন নমনীয় সাজা দেওয়া হয় সেই প্রত্যাশা করেছিলাম।

খন্দকার মাহবুব অভিযোগ করেন, সাক্ষীদের ট্রাইব্যুনালের ‘সেফ হোমে’ রেখে কীভাবে সাক্ষ্য দিতে হবে, তা শেখানো হয়েছে। সেই সাক্ষ্যের ভিত্তিতে নিজামীকে ফাঁসি দিয়েছিল ট্রাইব্যুনাল। ট্রাইব্যুনালে দেওয়া সাক্ষ্য সঠিক ছিল না, ভবিষ্যৎই তা বলে দেবে।

বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ ১৯৭১ সালে গণহত্যা ও ধর্ষণের দায়ে আলবদর বাহিনীর প্রধান ও জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির দণ্ড বহাল রেখে আজ রায় ঘোষণা করেন আপিল বিভাগ।