মেইন ম্যেনু

রুক্ষ-শুষ্ক হাত দুটিকে করে তুলুন মুখের মতই নরম ও কোমল

সব মেয়েরাই চায় তাঁর হাত দুটো সুন্দর ও কোমল থাকুক। বিশেষ করে সারাদিন কাজ করার পর গৃহিণীদের হাতটাই সবচাইতে বেশি অসুন্দর হয়ে ওঠে। কিন্তু সত্য কথাটা এই যে আমরা সবচেয়ে বেশি অবহেলা করি হাতকেই। আমাদের শরীরের সবচেয়ে ব্যস্ততম অঙ্গ হল হাত। সারাদিনে হাত দিয়ে আমরা বিভিন্ন রকম কাজ করে থাকি যেমন –শাকসবজি কাটা, রান্না করা, থালাবাসন পরিষ্কার করা, কাপড় ধোয়া,বাগান করা সহ গৃহস্থালির অন্যান্য কাজ ইত্যাদি। এসব কাজের ভিড়ে আপনার হাত শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যাওয়ার কারণগুলো হল:

১। শুষ্ক আবহাওয়া
শীতের সময়ে বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম থাকে তাই আপনার ত্বক ও শুষ্ক হয়ে যায়।

২। পানি
যারা পানি দিয়ে বেশি কাজ করে থাকেন তাদের হাতের ত্বক নিঃসৃত তেলের পরিমাণ কমে যায় ফলে হাত শুষ্ক হয়ে যায়।

৩। রাসায়নিক দ্রব্য
যারা নিয়মিত রাসায়নিক দ্রব্য নিয়ে কাজ করে এবং যারা গৃহস্থলীর কাজে খুব বেশি পরিষ্কারক দ্রব্য ব্যবহার করে তাদের হাত খসখসে হয়ে যায়। রাসায়নিক দ্রব্য হাত থেকে আদ্রতা শুষে নেয় এবং স্কিনের বাইরের লেয়ার নষ্ট করে দেয় ফলে ত্বকের অন্য আরো সমস্যার সৃষ্টি করে।

৪। সাবান
যারা বেশি বেশি সাবান ব্যবহার করেন তাদের হাতের নরমাল ইন্টেগ্রিটি নষ্ট হয়ে যায় ফলে ত্বকের নিজস্ব ক্ষমতা কমে যায় তাই হাতের ত্বক শুষ্ক হয়ে ফেটে যায়।

এছাড়াও ত্বকের কিছু স্বাস্থ্যগত সমস্যা যেমন- সোরিয়াসিস, এক্সিমা, অ্যালার্জি এবং কিছু ঔশুধের জন্যও হাত শুষ্ক হয়ে ফেটে যেতে পারে।

আপনার হাত দুটিও কি রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে গেছে? তাহলে হতাশ হবেন না। এমন কিছু ঘরোয়া উপায় আছে যা দিয়ে আপনার হাত কোমল ও সুন্দর হয়ে উঠবে। আসুন জেনে নেই সেই পন্থাগুলোর খোঁজ।

পেট্রোলিয়াম জেলি সহজ ও সস্তা
রুক্ষ, শুষ্ক ও ফেটে যাওয়া হাতের জন্য পেট্রোলিয়াম জেলি হচ্ছে সবচেয়ে ভালো উপাদান। রাতে ঘুমানোর আগে আপনার হাত পরিস্কার কাপড় দিয়ে মুছে ভালোভাবে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে রাখুন। রাতে আপনি যখন ঘুমিয়ে থাকবেন তখন পেট্রোলিয়াম জেলির সহায়তায় ত্বক নিজেই হাতের ফাটা অংশ গুলো মেরামত করে নেয়।

অলিভ অয়েল দেবে স্বাস্থ্য উজ্জ্বল ত্বক
অলিভ অয়েল এর অ্যান্টিওক্সিডেন্ট ও হেলদি ফ্যাটি এসিড শুষ্ক হাতের জন্য ভালো। জলপাই এর তেল ত্বকের আদ্রতা ফিরিয়ে এনে ত্বককে নরম ও কোমল করে এবং ত্বকের তারুণ্য ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে। প্রতিদিন দুই বার জলপাই তেল গরম করে ৫-১০ মিনিট আপনার হাতে ম্যাসাজ করুন, আপনার হাত নরম ও কোমল হবে।

নারিকেল তেল বহুগুনী
নারিকেল তেল ও অল্প লেবুর রস মিশিয়ে বোতলে ভরে রেখে দিন। আপনার সব কাজ শেষ হয়ে গেলে তেলের মিশ্রণটি ভালো ভাবে আপনার হাতে লাগান। লেবুর রস এসিডিক তাই প্রাকৃতিক ব্লিচ হিসেবে কাজ করে এবং এটা হাতের দাগ দূর করতে পারে।আর নারিকেল তেল এর ফ্যাট হাতের ত্বকের পুষ্টির যোগান দেয় ও আদ্রতা ফিরিয়ে আনে। তাই উপকার পেতে চাইলে রোজ এই মিশ্রণটি ব্যবহার করুন।

কিছু টিপস:

– যতোটা সম্ভব সাবান ব্যবহার কমিয়ে দিন এবং ব্যবহারের পরে খুব ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

– বাড়িতে এয়ার ড্রায়ার ব্যবহার কমিয়ে দিন।

– কটন ও লেদারের গ্লাভস ব্যবহার করুন। ভিনাইল গ্লাভস ব্যবহার করবেন না, কারণ এটা
হাতকে আরো শুষ্ক করে দিবে।

– মুখের ন্যায় হাতের ত্বকও এক্সফলিয়েট করুন। এতে হাতের পুরনো ত্বক দূর হয়ে নতুন ত্বকের সৃষ্টি হয় ।

– যাদের হাতের অবস্থা খুব বেশি খারাপ তারা রাতে পেট্রোলিয়াম জেলি,অলিভ অয়েল বা নারিকেল তেলের মিশ্রণটি লাগানোর পর হাতে সুতির গ্লাভস বা উলের মোজা পরে নিতে পারেন।

-অ্যালোভেরার রস হাতে লাগাতে পারেন।

– মধু ও ওটমিল ব্যবহার করতে পারেন স্ক্রাবার হিসাবে।