মেইন ম্যেনু

রুমানার দুরন্ত হ্যাটট্রিকে বাংলাদেশের জয়

ইতিহাসে নাম লিখিয়ে ফেললেন রুমানা আহমেদ। আয়ারল্যান্ডের বেলফাস্টে তিনি যা করলেন, তা শুধু বাংলাদেশই নয়, বিশ্ব নারী ক্রিকেটাঙ্গনেই একটা নজির। প্রথম বাংলাদেশি নারী বোলার হিসেবে গড়ে ফেললেন দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক। তার এই হ্যাটট্রিকেই স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে দিলো বাংলাদেশের মেয়েরা।

বেলফাস্টে আজ আয়ারল্যান্ডের মেয়েদের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে স্বাগতিকদের মুখোমুখি হয় জাহানারা আলমরা। এই ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে বেধে রাখার মূল কাজটিই করেন লেগ স্পিনার রুমানা। তার হ্যাটট্রিকেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ মহিলা দল। টি-টোয়েন্টি সিরিজ ১-০ তে হারার পর এই জয়ের ফলে ওয়ানডে সিরিজটা বাংলাদেশের মেয়েরা জিতল ১-০ তে। প্রথম ওয়ানডেটি ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। একটি বলও গড়ায়নি মাঠে। একই পরিণতি হয় দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচেরও। তবে এই ম্যাচে ১৮ ওভার ব্যাট করেছিল আয়ারল্যান্ড।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের মেয়েরা ৪০.১ ওভারে করে ১০৬ রান। জবাবে সহজ জয়ের দিকেই যাচ্ছিল আইরিশ মেয়েরা। এক পর্যায়ে হাতে ৮ উইকেট নিয়ে দরকার ছিল মাত্র ৫৫ রান; কিন্তু রুমানার হ্যাটট্রিকে ঘুরে যায় ম্যাচের মোড়। বাংলাদেশের মেয়েদের হাতে ধরা দেয় ম্যাচের সঙ্গে সিরিজ জয়।

দলকে জিতিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পেয়েছেন রুমানাই। এরপর তিনি বলেন, ‘দারুন লাগছে। ওই সময়ে এটা না হলে আমরা জিততাম না। দলের জন্য এরকম একটা কিছুই দরকার ছিল। চাপের মধ্যে থেকেও কাজটা করে পেরে আমি খুশি।’

বাংলাদেশের মেয়েদের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিক করবেন, এটা কল্পনাতেও আসেনি রুমানার; কিন্তু হ্যাটট্রিক বলের আগে ভর করেছিল আত্মবিশ্বাস, ‘আগের দুই ব্যাটসম্যানকে আমি সোজা বল করে এলবিডব্লু করেছি। হ্যাটট্রিক বলেও ভাবলাম ওরকম বলই করতে হবে। টার্ন করানোর চেষ্টা না করে সোজা করতে চেয়েছি। সেটাই হয়েছে।’