মেইন ম্যেনু

রুশ পাইলটের মৃতদেহ ফিরিয়ে দেবে তুর্কি

গত মঙ্গলবার সিরিয়া সীমান্তে তুর্কিদের দ্বারা একটি রুশ জঙ্গি বিমান ধ্বংসের পর বিমানের দুইজন পাইলটের একজন নিহত হন এবং তার মৃতদেহটি বর্তমানে তুর্কি কর্তৃপক্ষের অধীনে রয়েছে।

তুর্কি প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতগল বলেছেন রুশ পাইলট লে. কর্নেল ওলেগ পেশকভের মৃতদেহ খুব শিগগিরি রাশিয়াতে ফেরত পাঠানো হবে।

বিমান ধ্বংসের পর তুর্কি বলেছিল যে রুশ বিমানটি তাদের আকাশপথে জোর করে ঢুকে পড়েছিল কিন্তু রাশিয়া এই অজুহাত মেনে নেয় নি । এই ঘটনার পর থেকে দুই দেশের মাঝে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং দুই তরফ থেকেই বেশ কিছু পাল্টাপাল্টি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ধ্বংসপ্রাপ্ত বিমানের আরেকজন পাইলট বেঁচে আছেন এবং তিনি প্রথমে ধরা পড়েছিলেন সিরিয়ার সশস্ত্র বিদ্রোহী দলের কাছে কিন্তু পরে তাকে স্পেশাল ফোর্স গিয়ে উদ্ধার করেন।

তুর্কির বিমান ধ্বংসের প্রতিবাদে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত শনিবার তুর্কি থেকে কোনো প্রকার আমদানি রপ্তানি এবং বাণিজ্যে নিষেধাজ্ঞার উপরে একটি রায় স্বাক্ষর করেন। এমনকি দুই দেশের মধ্যে চার্টারকৃত বিমানের ফ্লাইটও নিষিদ্ধ।

এ ঘটনায় পুতিন তুর্কির কাছ থেকে একটি ক্ষমা প্রার্থনা আশা করলেও তুর্কি প্রেসিডেন্ট এর্দোগান ক্ষমা চাইতে অস্বীকৃতি জানান। এর্দোগান গত শুক্রবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন মস্কো আগুন নিয়ে খেলছে কিন্তু শনিবার তিনি আবার সুর পাল্টে বলেন, এই ঘটনায় তিনি ব্যথিত।

উল্লেখ্য, রুশ এবং তুর্কির মাঝে গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে। গুরুত্বের দিক থেকে রাশিয়া তুর্কির ২য় বাণিজ্যিক সঙ্গী এবং গত বছর প্রায় ৩০ লাখেরও বেশি রুশ পর্যটক তুর্কি পরিদর্শন করেছিলেন।