মেইন ম্যেনু

রোয়ানু’র আঘাতে বিধ্বস্ত উপকূল, শিশুসহ নিহত ২৫

বাংলাদেশে আঘাত করেছে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু। ৮০ থেকে ৮৮ কিমি বাতাসের গতিবেগ নিয়ে পেরিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের উপকূল। শনিবার (২১ মে) পৌনে ১২টার দিকে চট্টগ্রাম উপকূলে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে। তবে এরই মধ্যে উপকূলীয় অঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় ঘটে গেছে দুর্ঘটনা। এখন পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ২৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

শনিবার (২১ মে) ভোর থেকে রাত পর্যন্ত প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে সাতজন, সীতাকুণ্ডে মা ও মেয়ে, আনোয়ারায় দুজন, ষোলশহরে এক শিশু, কক্সবাজারে তিনজন, ভোলার তজুমদ্দিনে গৃহবধূ ও স্কুলছাত্র, দৌলতখানে এক নারী, মনপুরায় নবজাতক, পটুয়াখালীর দশমিনায় এক বৃদ্ধা, লক্ষ্মীপুরে একজন, নোয়াখালীর হাতিয়ায় মা মেয়েসহ তিনজন, ফেনীর সোনাগাজীতে একজন প্রাণ হারিয়েছে।

চট্টগ্রাম: ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে বাঁশখালীতে সাতজনের প্রাণহানি হয়েছে। স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। অপরদিকে, ঘূর্ণিঝড়ে সীতাকুণ্ডে জঙ্গল ছলিমপুরের কালাপানিয়া পাহাড় এলাকায় ঘরের ওপরে গাছ ভেঙে পড়ে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন- কালাপানিয়া পাহাড় এলাকার বাসিন্দা রফিকের স্ত্রী কাজল বেগম (৫০) ও তার ছেলে বেলাল প্রকাশ আবু (১০)। তাছাড়া নগরীর ষোলশহর ২ নম্বর গেট এলাকায় টিনের ঘরের চাল পড়ে রাজিব (১২) নামে এক শিশু ও আনোয়ারা উপজেলা প্রাণ হারিয়েছে আরো দুজন।

কক্সবাজার: ঝড়ের সময় বাড়ির দেয়াল চাপা পড়ে কুতুবদিয়া উপজেলার উত্তর ধুরুং এলাকার আবদুর রহিমের ছেলে মো. ইকবাল (২৫) ও নৌকায় বসে থাকা অবস্থায় অপর নৌকার ধাক্কায় উত্তর কৈয়ারবিল এলাকার ফয়েজুর রহমানের ছেলে ফজলুল হক (৫৫) মারা গেছেন। অপরদিকে, আলী আকবর ডেইল সৈকতে মাছ ধরতে গিয়ে স্রোতের টানে ভেসে যান জেলে ফকির আলম (৪৯)। বিকেলে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। তিনি সাগরদ্বীপ কুতুবদিয়ায় উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের তাবলেরচর গ্রামের বাসিন্দা।

ভোলা: প্রবল ঝড়ে ঘরচাপায় ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলার শশিগঞ্জ গ্রামের নয়নের স্ত্রী রেখা বেগম ও চাঁদপুর ইউনিয়নের শশিগঞ্জ গ্রামের মো. মফিজের ছেলে স্কুলছাত্র আকরাম মারা গেছে। ঘরচাপা পড়ে দৌলতখান উপজেলার দক্ষিণ জয়নগর ইউনিয়নের বাসিন্দা ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী রানু বিবি (৫০) মারা গেছেন। অপরদিকে, মনপুরায় সামিয়া নামে এক নবজাতক ঘূর্ণিঝড় চলাকালে প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় মারা যা। সে উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের আর্দশ গ্রামের বাসিন্দা তসলিমের মেয়ে।

পটুয়াখালী: জেলা দশমিনায় ঘরচাপা পড়ে নয়াবিবি (৫০) মারা গেছেন। তিনি দশমিনা সদর ইউনিয়নের লক্ষ্মীপুর গ্রামের বাসিন্দা।

লক্ষ্মীপুর: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে ঝড়ো হাওয়ায় গাছ উপড়ে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার উত্তর তোওয়ারিগঞ্জ এলাকায় আনোয়ার উল্লাহ (৫৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তিনি তোওয়ারিগঞ্জের বশির উল্লাহর ছেলে।

নোয়াখালী: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার চানন্দি ইউনিয়নের আদর্শ গ্রামের মিনারা বেগম (৪০) তার মেয়ে রুমা আক্তার (৯) জোয়ারের পানিতে ভেসে গিয়ে মৃত্যু হয়।একই ভাবে জোয়ারের পানিতে ভেসে গিয়ে মারা গেছেন জাহাজমারা ইউনিয়নের চরহেয়ার গ্রামের সালাউদ্দিন ব্যাপারীর স্ত্রী মাহফুজা বেগম (৫০)।

ফেনী: জেলার সোনাগাজীতে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।