মেইন ম্যেনু

লন্ডনের উদ্দেশে খালেদার ঢাকা ত্যাগ

চোখের চিকিৎসার পাশপাশি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের (ফ্লাইট নম্বর-৫৮৫) একটি বিমানে করে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। বিএনপি নেত্রীর সঙ্গে তার একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার ও গৃহকর্মী ফাতেমা রয়েছেন।

বিমানবন্দরে বিএনপি চেয়ারপারসনকে বিদায় জানাতে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও বিএনপির মুখপাত্র আসাদুজ্জামান রিপন উপস্থিত ছিলেন। খালেদা জিয়াকে বিদায় জানাতে বিমানবন্দর এলাকায় বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অনেক নেতা-কর্মী জড়ো হন।

২০০৬ সালের ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ার পর লন্ডনে খালেদা জিয়ার এটি দ্বিতীয় সফর। ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশে ফেরার পথে তারেককে দেখতে তিনি লন্ডন গিয়েছিলেন। তারেক রহমান ২১ আগস্ট মামলার হুলিয়া নিয়ে গত সাত বছর ধরে লন্ডনে রয়েছেন। খালেদা জিয়া গত বছর ওমরাহ করতে সৌদি আরবে গেলে তারেকও লন্ডন থেকে সেখানে গিয়েছিলেন। এর পর আর মা-ছেলের দেখা হয়নি। এর মধ্যে মালয়েশিয়ায় থাকা খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো মারা যান।

প্রায় চার বছর পর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাচ্ছে বিএনপিতে। ব্যক্তিগত সফর বলা হলেও কার্যত দলের ষষ্ঠ কাউন্সিল, ভবিষ্যত আন্দোলনের রূপরেখা, মধ্যবর্তী নির্বাচন ও নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রশ্নে আন্তর্জাতিক মহলের সমর্থন এবং সর্বোপরি যুগের সঙ্গে মানানসই করে দলকে ঢেলে সাজানোর মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হবে লন্ডনে। আর দলের নেতা-কর্মীরা তাদের নেত্রীর এই সফরকে দেখছেন ‘আধুনিক বিএনপির’ যাত্রা হিসেবে। এমনটাই বলছে দলটির একাধিক সূত্র।

এদিকে বিএনপি নেত্রীর এই লন্ডন সফরের মাধ্যমে দীর্ঘ ৮ বছর পর এবারই পরিবারের সঙ্গে ঈদ করবেন খালেদা জিয়া। লন্ডনে তিনি দুই সপ্তাহের মতো অবস্থান করবেন বলে জানা গেছে। এই সময়ে দল পরিচালনার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।