মেইন ম্যেনু

লবণ পানিতে গোসলের উপকারিতা

প্রতিদিনের রান্নাসহ বিভিন্ন খাবার তালিকায় লবণের ব্যবহার অপরিসীম। লবণ ছাড়া আমাদের খাদ্য তালিকা স্বাদহীন হয়ে পড়ে। আজ আমরা দেখব রূপচর্চাসহ শরীরের যত্নে লবণের ব্যবহার। লবণের পানির গোসলে অনেক উপকার গোসল তো আমরা রোজই করি। তবে শুধুমাত্র নিজেকে পরিষ্কার রাখার জন্যই আমরা গোসল করি। এই গোসলের ফলে আমাদের শরীর পরিষ্কার ছাড়া আর কোনো উপকার হয় না।

শরীরের বিভিন্ন স্থানে ব্যাথা হয়। গোসলের ফলে আপনার শরীরের ব্যথাও কমতে পারে! অবাক হচ্ছেন তো? ঘরোয়া উপায়ে গোসলের মাধ্যমে অনেক ধরনের রোগের হাত থেকে রেহাই পেতে পারেন। কোনো পার্লারে যাওয়ার দরকার পড়বে না আর।

আমরা খাবারে লবণ খাই। আমাদের শরীরে অনেক রোগের উপশমে সাহায্য করতে লবণের গুরূত্ব অনেক। ঠিক সেই রকম গোসলের পানির বাথ সল্ট ব্যবহার করলেই হবে। তবে এবার এক ঝলকে দেখে নিন কী কী রোগ উপশমে সক্ষম হতে পারে ইএ বাথ সল্ট-

ত্বকের জন্য ভাল

বাথ সল্ট ত্বকের জন্য খুবই ভাল। পানির মধ্যে এই লবণ মিশিয়ে গোসল করলে ত্বক উজ্জ্বল হবে। লবণে থাকে ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, পটাশিয়াম যা ত্বকের মধ্যে গিয়ে ত্বকের কোষগুলোকে নতুনভাবে গঠন করে। এতে সতেজ ও উজ্জ্বল হবে আপনার ত্বক।

ডিটক্সিফিকেশন

উষ্ণ গরম পানির সঙ্গে লবণ মিশিয়ে গোসল করলে ত্বকের অতিরিক্ত টক্সিন বেরিয়ে যায়। লবণ কোষের মুখগুলোকে খুলে দেয়, যা লবণে থাকা মিনারেলসগুলেকে শুষে নেয়। এর ফলে সারাদিনের সব ময়লা বেরিয়ে গিয়ে ত্বক হয়ে ওঠে মসৃণ এবং উজ্জ্বল।

কম বয়সি দেখাবে আপনাকে

নিজেকে কম বয়সি দেখাতে কে না চায়। কিন্তু পার্লারে গিয়ে হাজার হাজার টাকা খরচ করতে হয় প্রতি মাসে। কিন্তু বাথ সল্ট দিয়ে গোসল করলে মুছে যাবে ত্বকের সমস্ত বলিরেখা। আসলে এই লবণ ত্বকের ময়েশচার ধরে রাখতে সাহায্য করে। যার ফলে ত্বকে বলিরেখা পড়ে না।

রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়

সারাদিন বাইরে ঘুরে ঘুরে কাজ করার পর বাড়িতে এসে বাথ সল্ট দিয়ে গোসল করে নিন। তাতে দেখবেন অনেক বেশি সতেজ লাগবে নিজেকে। লবণ শরীরের রক্ত চলাচল ঠিক রাখতে সাহায্য করে যার ফলে ছুঁতে পারে না ক্লান্তি।

বিভিন্ন রোগ নিরাময়

লবণ পানির গোসলের মাধ্যমে অস্টিও আর্থারাইটিস, নিদ্রাহীনতা, চুলকানির হাত থেকে নিরাময় পাওয়া যায়।