মেইন ম্যেনু

লাইসেন্স হারাল বাংলাফোন

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) টেলিকম প্রতিষ্ঠান বাংলাফোনের ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (আইএসপি) লাইসেন্স বাতিল করেছে। বাতিলকৃত লাইসেন্সের নম্বর হলো-বিটিআরসি/এলএল/আইএসপি-ন্যাশনালওয়াইড(১০১)বাংলাদেশ/২০০৯-৫৪৪, তারিখ-০৪-০৮-২০০৯। এর ফলে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি তাদের গ্রাহকদের আর এ সেবা দিতে পারবে না।

বৃহস্পতিবার বিটিআরসির লিগ্যাল অ্যান্ড লাইসেন্সিং বিভাগের উপপরিচালক সাজেদা পারভীনের স্বাক্ষর করা চিঠি নং-১৪.৩২.০০০০.০০৭.৫৫.১১১.১৫.৫৯০, তারিখ-১১-০৬-২০১৫ এর মাধ্যমে বাংলাফোনের লাইসেন্স নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ফিক্সড ফোন ও ইন্টারনেট সেবার লাইসেন্স নিয়ে বাংলাফোন লিমিটেড অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক ট্রান্সমিশন সেবা দিয়ে যাচ্ছিল। সরকারের ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি বাংলাফোনের নেশনওয়াইড আইএসপি পারমিট (লাইসেন্স) আর নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একই সঙ্গে বিটিআরসি বাংলাফোন থেকে অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক ট্রান্সমিশন সেবা গ্রহণকারী সব প্রতিষ্ঠানকে সংশ্লিষ্ট গাইডলাইন বা লাইসেন্স শর্ত অনুযায়ী কমিশনের লাইসেন্সধারী নেশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশনস ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক ট্রান্সমিশন সেবা নিতে বলা হয়েছে।

সূত্র জানায়, বাংলাফোন এনটিটিএন সেবাদানের জন্য কমিশন থেকে লাইসেন্স নেয়নি। এরপরও এই সেবা অব্যাহত রাখতে গ্রাহকের স্বার্থ সংরক্ষণ ও বিনিয়োগকে বিবেচনায় নিয়ে বাংলাফোনকে ফাইবার অপটিক ট্রান্সমিশন সেবা শর্তসাপেক্ষে এক বছরের জন্য অব্যাহত রাখার অনুমোদন দেয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়। অনুমোদিত সময়ের মধ্যে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও বাংলাফোন তা মানেনি। এ বিষয়ে কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ করে এনটিটিএন লাইসেন্স পাওয়া দুটি প্রতিষ্ঠান।

indexjhgfhgh

সূত্র জানায়, লাইসেন্স বাতিল করা হলে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইলফোন অপারেটর, আইএসপিসহ অন্যান্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটবে এই কারণ দেখিয়ে এক বছরের জন্য ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্ক ট্রান্সমিশন সেবার অনুমোদন পায় বাংলাফোন। এ ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়ের শর্ত ছিল, এ সময়ের মধ্যে নতুন করে নেটওয়ার্ক বৃদ্ধি এবং কোনো ধরনের যন্ত্রাংশ স্থাপন করতে পারবে না বাংলাফোন। এর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় লাইসেন্স নবায়ন ফি, রেভিনিউ শেয়ারের অংশসহ প্রতিষ্ঠানটির কাছে সরকারের পাওনা টাকার ক্ষেত্রে বিটিআরসির নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে। ওই অনুমোদনের মেয়াদ গত ২৩ এপ্রিল শেষ হয়।

সরকার ২০০৯ সালে দুটি প্রতিষ্ঠানকে এনটিটিএন লাইসেন্স দেয়। নীতিমালার শর্ত অনুযায়ী এই লাইসেন্স ছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠান ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক তৈরি, রক্ষণাবেক্ষণ, উন্নয়ন বা পরিচালনা করতে পারবে না।