মেইন ম্যেনু

লামায় জীপ গাড়ী দুর্ঘটনায় ১ উপজাতি নারী নিহত, আহত-১৫

বান্দরবানের লামায় কেয়াজু পাড়া হতে লামা গামী চান্দের গাড়ী (জীপ) অতিরিক্ত যাত্রী বোঝায় করে শনিবার সকাল ১১ ঘটিকায় লামা-সুয়ালক রোডে জীপ গাড়ী খাদে পড়ে দুর্ঘটনায় ১জনের মৃত্যু ও ১৫ জন গুরুতর আহত।

সরেজমিনে দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, অতিমাত্রার যাত্রী পরিবহন ও ফিটনেস বিহীন গাড়ীর কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে। নিহতের আত্মীয় স্বজন ও আহতদের আহাজারিতে ঘটনাস্থল শোকের কাল ছায়া নেমে আসে। জীপ গাড়ী চালক আনোয়ার হোসেন দুর্ঘটনাস্থল থেকে গাঁ ঢাকা দেয়। তার বাড়ি লামা পৌরসভা এলাকার নয়াপাড়া গ্রামে বলে জানা গেছে।

নিহত ম্যাচিং মার্মা(৩১) সে গজালিয়া ইউনিয়নের বাঁইশপাড়ি এলাকার থুইক্যাচিং মার্মার স্ত্রী। আহতরা হলেন, শ্রোচিউ মার্মা(৩৫), আমেনা বেগম(২৫), বেলায়েত হোসেন(৬০), মোঃ ইউছুপ(৩০), আকবর আহাম্মদ(৫০), আব্দু রশিদ(৩৫), মাচিংছা মার্মা(৩৯), আব্দুল খালেক(৭০), দিকাম্বর ত্রিপুরা(৪০), কিজা মার্মা(৪০), আয়েশা খাতুন(৩০), রুবি আক্তার(৪), মে সা প্রু মার্মা((৪২), শিরোমণি ত্রিপুরা(৭০), আশ্রাফ আলী(৫৫), বৃত্তরা ত্রিপুরা (৫০)। আহতরা সবাই গজালিয়া ও সরই ইউনিয়নের বাসিন্দা। আহতদের দ্রুত চিকিৎসার জন্য লামা হাসপাতালে আনা হয়। আহতদের মধ্যে দিকাম্বর ত্রিপুরা ও কিজা মার্মার অবস্থা আশংকাজনক হওয়াই লামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত ডাক্তার তাদের চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে।

গজালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাথোয়াই চিং মার্মা এপ্রতিবেদককে জানান, আজ শনিবার লামা বাজারের সাপ্তাহিক হাটবার হওয়াই জীপ গাড়ীতে অতিমাত্রায় যাত্রী পরিবহনের কারণে এই দুর্ঘটনা হয়েছে। তাছাড়া অদক্ষ ড্রাইভার, ফিটনেস বিহীন গাড়ী ও হেলপার দিয়ে গাড়ী চালানোর কারণে উক্ত রোডে প্রায় এরকম দুর্ঘটনা ঘটছে।

লামা থানার দায়িত্বরত অফিসার পুলিশের উপ-পরিদর্শক রবিউল হোসেন জানান, দুর্ঘটনার শিকার নিহত ও আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।