মেইন ম্যেনু

লিফটের ভেতরে নার্সের জামা তুলে শরীর স্পর্শ, অত:পর…

লিফটের মধ্যে নার্সের পিছন দিকের জামা তুলে গায়ে হাত দেওয়ার চেষ্টা। তাও আবার রাস্তার কোনও লোফার নয়। খোদ চিকিৎসকের। গায়ে চিকিৎসকদের সাদা জামা, গলায় স্টেথোস্কোপ। কিন্তু হাত চলছে রাস্তার অসভ্য ছেলেছোকরার মতো। CCTV ফুটেজে দেখা যাচ্ছে ওই মহিলা বিরক্ত হচ্ছেন, হাত সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু কোনও হেলদোল নেই চিকিৎসকের। তার তখন একটাই লক্ষ্য। খবর ভারতীয় গণমাধ্যম।

প্রকাশ্যে আসতেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে গেছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, লিফটে আরও বেশ কয়েকজন রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে অন্তত ৬/৭ জন চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত বলে মনে হয়, তাদের পোশাক দেখে। কয়েকজন ডাক্তার ও নার্স। দরজা লাগার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু অসভ্যতা। নার্সের অস্বস্তি। কিন্তু আশপাশের কেউ টের পেলেন বলে মনে হয় না।

ভিডিওটির এখানেই শেষ। এর বেশি তথ্য ইন্টারনেটে পাওয়া গেল না। জানা গেল না, ওই নার্স হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে এই বিষয়ে কোনও নালিশ করেছিলেন কি না ? কর্তৃপক্ষ কিছু ব্যবস্থা নিয়েছিল কি না ? না কি রাস্তাঘাট, অফিস-বাজার, বাস-ট্রামে যেভাবে নিত্যদিন এরকম হাজারো ঘটনা ঘটে, সেরকমই এটি একটি বিক্ষিপ্ত, বিচ্ছিন্ন ঘটনা।

তবে বিচ্ছিন্ন হলেও, এই ঘটনা প্রশ্ন তুলে দেয় – যে চিকিৎসকের কাছে নার্সই সুরক্ষিত নন, তার কাছে রোগিণী এসে সুরক্ষিত থাকবেন কী ভাবে?