মেইন ম্যেনু

শকুনের অভাবে বদলে যাচ্ছে সৎকার প্রথা

কথায় বলে শকুনের চোখ! কিন্তু, ইদানিং সেই চোখ আর ভাগাড় খোঁজে না। কারণ, বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর তালিকায় রয়েছে শকুনের নাম। এতে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্টের পাশাপাশি, বিশেষ এক সম্প্রদায়ের দীর্ঘদিনের সৎকার প্রথাও নিশ্চিহ্নের মুখে।

ভারতের মুম্বাইতে দেখা যায় এই পার্সি গোষ্ঠীকে। মৃত্যুর পর এদের দেহ মাটি চাপা কিংবা পোড়ানো নয়, বরং শকুনের অপেক্ষায় রেখে দেয়া হতো। তবে সম্প্রতি শকুনের আর দেখা মেলে না। তাই বাধ্য হয়ে মৃতদেহ পুড়িয়ে ফেলছে পার্সি ধর্মাবলম্বীরা।

মুম্বাইয়ের ধনী ব্যবসায়ীদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন পার্সি ধর্মাবলম্বী কায়কোবাদ রুস্তোমফ্রাম। সম্প্রতি তিনি মারা গিয়েছেন। পার্সি প্রথা অনুযায়ী মৃত্যুর পর কোনও ব্যক্তির দেহ টাওয়ার অব ডেথে রাখা হত। সেখানে শকুনেরা মৃতের শরীরের মাংস খুবলে খেয়ে শেষ করত। রুস্তোমফ্রামও আজন্ম সেই ইচ্ছেই লালন করেছিলেন। কিন্তু, তার শেষ ইচ্ছে অপূর্ণই রয়ে গেল। শকুনের দেখা পাওয়াই ভার। তাই শেষ পর্যন্ত হিন্দুদের মতো মুম্বাইয়ের এক শ্মশানে আগুনে পোড়ানো হল ৯০ বছর বয়সী রুস্তোমফ্রামের দেহ। অথচ, আগুন পার্সিদের কাছে ভীষণ পবিত্র। তাতে মৃতদেহ ছোঁয়ানো প্রথা না মানারাই সমান। কিন্তু, উপায় নেই।

জরথুষ্ট্র পন্থী বা পার্সি ধর্মাবলম্বীদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার এই প্রথা বহু পুরনো। অনেক আগে মৃতদেহ রেখে আসা হত উঁচু কোনও পাহাড়ের উপর। সেখানে শকুনেরা মৃতদেহ খুবলে খেত। পড়ে থাকা হাড় শুকিয়ে যাওয়ার পর বিশেষ পদ্ধতিতে সেগুলো কুয়োয় জলে ফেলে অন্ত্যেষ্টি সম্পন্ন হত। এমনটাই হয়ে আসছে হাজার হাজার বছর ধরে। কিন্তু, দিন দিন শকুনের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। কাজেই ভারতে বসবাসকারী পার্সিরা হিন্দুদের মতো মৃতদেহ আগুনে পুড়িয়ে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার দিকে ঝুঁকছেন।

নব্বই দশকের শুরু থেকে হু হু করে শকুনের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। ব্যাপারটা ক্রমশ উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠছে। পরিসংখ্যান বলছে, শকুনের সংখ্যা প্রায় ৯৯ শতাংশ কমে গিয়েছে। কাজেই এক দিকে শকুনের সংখ্যা যেমন কমছে, তেমনই ভারসাম্য হারাচ্ছে প্রকৃতিও। আর প্রকৃতির পাশাপাশি সে প্রভাব পড়ছে সামাজিক প্রথাতেও।