মেইন ম্যেনু

শচীন-পুত্রকে জায়গা দিতে বাদ ​বিশ্ব রেকর্ড গড়া সেই কিশোর!

প্রণব ধানওয়ারের কথা মনে আছে? গত বছর জুনে এই ধানওয়ারেই কিন্তু অনূর্ধ্ব-১৫ পর্যায়ের একটি ক্রিকেট ম্যাচে ১০০০ রানের ইনিংস খেলে চমকে দিয়েছিল ক্রিকেট-বিশ্বকে। ৩২৭ বলে ক্রিকেট-ইতিহাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ম্যাচে হাজার রান করার রেকর্ডের অধিকারী সেই ধানওয়ারে নির্বাচিত হতে পারেননি ভারতের পশ্চিমাঞ্চল অনূর্ধ্ব-১৬ স্কোয়াডে।

এ নিয়ে ভারতের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুমুল সমালোচনা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, একজন অটোরিকশাচালকের সন্তান এই ধানওয়ারের পশ্চিমাঞ্চল অনূর্ধ্ব-১৬ দলে সুযোগ না পাওয়ার কারণ নাকি শচীন টেন্ডুলকার-পুত্র অর্জুন! ফেসবুক-টুইটারে বলা হচ্ছে, অনন্য প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান হওয়া সত্ত্বেও ধানওয়ারে বাদ পড়েছে কেবল টেন্ডুলকার-পুত্র অর্জুনকে সুযোগ করে দিতে। ফেসবুক-টুইটারে নানা ধরনের ট্রলে সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এই ঘটনার।

ধানওয়ারের বাবা একজন অটোরিকশাচালক আর অর্জুনের বাবা শচীন টেন্ডুলকার বলেই কি এই বৈষম্য—এমন প্রশ্ন অনেকেই রেখেছেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে। অর্জুন টেন্ডুলকারের ক্রিকেটীয় রেকর্ডপত্র বের করেও তুলনায় আনা হচ্ছে ধানওয়ারের সঙ্গে। বলা হচ্ছে, ধানওয়ারের তুলনায় অনেক কম প্রতিভাবান হলেও অর্জুন সুযোগ পাচ্ছে কেবল তার বাবার প্রভাবে।

কেন বাদ পড়লেন ধানওয়ারে? জুনিয়র দলের নির্বাচকেরা যুক্তি দিচ্ছেন, বয়সের। তাঁদের ভাষ্যমতে, ধানওয়ারের জন্ম ২০০০ সালের ১৩ মে। তার মানে সে ইতিমধ্যেই ১৬ বছরের বয়সসীমা পেরিয়ে এসেছে। বয়স পেরিয়ে যাওয়াতেই ধানওয়ারকে অনূর্ধ্ব-১৬ দলে নেওয়া হয়নি। অর্জুনের বয়স এখনো পুরোপুরি ১৬ হয়নি।

নির্বাচকদের যুক্তি তো ঠিকই আছে। কিন্তু আবেগপ্রবণ জনতা এই যুক্তি মানতে যাবে কেন? তাদের মাথায় আছে একটি তথ্যই—একজনের বাবা অটোরিকশাচালক, আরেকজনের টেন্ডুলকার! সূত্র : জি নিউজ।