মেইন ম্যেনু

শত কষ্টের মাঝেও বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পাপিয়ার এ প্লাস, কলেজে ভর্তির নেই টাকা

হাবিবুর রহমান হাবিব, ঝিনাইদহ থেকে : বাবা আগেই ক্যানসারে মারা গেছেন। মা অন্যের বাড়িতে বাড়িতে কাজ করে যা পান তা দিয়েই সংসার চলে পাপিয়াদের। এত কষ্টের মাঝেও হাল ছাড়েননি পাপিয়া।

শত অভাব-অনটনের মধ্যে স্বপ্ন দেখেন তিনি। পাপিয়ার স্বপ্ন- লেখাপড়া শিখে ফেলে আসা কষ্টের দিনগুলো মুছে দেয়া। মাকে বুড়ো বয়সে একটু শান্তি দেয়া। সেই স্বপ্নই আজ তাকে নিয়ে গেছে অনেক দূর।

২০১০ সালে বাবা ক্যানসারে মারা যাওয়ার পর ষষ্ঠ শ্রেণিতে তখন পাপিয়া। মা পরের বাড়িতে কাজ করেন। মা-মেয়ের সংসারে কষ্ট আর কষ্ট। একদিকে খাবার জোগাড় অন্যদিকে পাপিয়ার লেখাপড়া শেখার টাকা। এ অবস্থায়ও ভেঙে পড়েননি পাপিয়া। খেয়ে না খেয়ে লেখাপড়া করে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিয়ে-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ভাতঘরা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন পাপিয়া। ইচ্ছা আর আন্তরিকতায় তার এ সফলতা। অর্থাভাবে প্রত্যন্ত পাড়াগাঁয়ের এই মেয়েটির সেই স্বপ্ন আজ যেন স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে। কারো সহযোগিতা পেলে পাপিয়ার সেই স্বপ্ন একদিন বাস্তবে রূপ নেবে।

পাপিয়া রায়গ্রাম ইউনিয়নের জটারপাড়া গ্রামের মৃত জালাল উদ্দিনের একমাত্র মেয়ে। তার এ সাফল্যে খুশি তার বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গ্রামবাসী।

বুধবার তার ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে সাবার মুখে মুখে পাপিয়ার নাম। কিন্তু অভাবের সংসারে মুখে হাসি নেই পাপিয়ার মা মমেনা বেগমের।

তার শঙ্কা- হয়তো অর্থের অভাবে মেয়ের উচ্চশিক্ষার দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। অন্যের বাড়িতে কাজ করে কি মেয়েকে স্বপ্ন দেখাতে পারবেন তিনি?

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, পাপিয়া অনেক মেধাবী। তার লেখাপড়ার জন্য স্কুল থেকে সহযোগিতা করা হতো। তাকে একটু সাহায্য করলে একদিন বড় কিছু করে দেখাতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস।

পাপিয়ার মা মমেনা বেগম বলেন, খুব কষ্ট করে বাবা মেয়েকে লেখাপড়া করিয়েছি। টাকার অভাবে ঠিকমতো পড়াতে পারিনি। আমার দুই ছেলে আলাদা থাকে। আমি পরের বাড়িতে কাজ করে মেয়েকে লেখাপড়া শিখিয়েছি। মেয়েকে কলেজে ভর্তি করানোর মত টাকা নেই। কি হবে আমার মেয়ের?

পাপিয়াকে সরাসরি সাহায্য পাঠাতে যোগাযোগ করতে পারেন নিচের নাম্বারে…

মোবাইল : 01930 546939