মেইন ম্যেনু

শনিবার প্রকাশিত হচ্ছে নারী-পুরুষ আলেমদের স্বাক্ষরিত ফতোয়া

ইসলামের নামে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দেশের ১ লাখ ১ হাজার ৮৫০ জন নারী-পুরুষ আলেমদের স্বাক্ষরিত ফতোয়া প্রকাশ করা হবে।

শনিবার সকাল ১১টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই ফতোয়া প্রকাশ করা হবে বলে শুক্রবার জানিয়েছেন স্বাক্ষর গ্রহণের প্রধান উদ্যোক্তা বাংলাদেশ জমিয়াতুল উলামার চেয়ারম্যান ও ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরিদউদ্দীন মাসঊদের সন্তান সদরুদ্দিন মাখনুন।

৩০ খন্ডে প্রস্তুত এই ফতোয়ার ২৬ খন্ডে রয়েছে ৯২ হাজার ৫৩০জন পুরুষ আলেমের সাক্ষর এবং চার খন্ডে রয়েছে নয় হাজার ৩২০জন নারী আলেমের স্বাক্ষর। মূল বিষয় থাকবে ৩৫ পৃষ্ঠাজুড়ে। এটি সাধারণ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে ১ কোটি কপি ছাপানো হবে।

গত ৮ এপ্রিল মাওলানা ফরিদউদ্দীন মাসঊদ জানিয়েছিলেন, গত ২ জানুয়ারি দেশের প্রায় ৭০০ আলেম-ওলামা নিয়ে রাজধানীর ইকরা মাদ্রাসায় বৈঠক করা হয়।

স্বাক্ষর গ্রহণ শুরু হয়, ফেব্রুয়ারি মাসে স্বাক্ষর গ্রহণ সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও শেষ হয় মে মাসে বলে জানান সদরুদ্দিন মাখনুন।

সূত্রে জানা গেছে, একমাত্র জামায়াতে ইসলামী ছাড়া সব ইসলামি দল ও সংগঠন সরাসরি সমর্থন না দিলেও বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ব্যক্তিগতভাবে এই ফতোয়ায় সমর্থন দিয়েছেন। হেফাজতের মহাসচিব বাবুনগরী, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলেনর নায়েব আমির মুফতি ফয়জুল করিম, খেলাফত আন্দোলন, হাটহাজারী মাদ্রাসা, পটিয়া মাদ্রাসা, চরমোনাই মাদ্রাসাসহ দেশের শীর্ষ আলেমরা এই ফতোয়ায় একমত হয়ে স্বাক্ষর করেছেন।

মাওলানা ফরিদউদ্দীন মাসঊদ জানিয়েছিলেন, স্বাক্ষর সম্বলিত এই ফতোয়া কাবা শরিফের ইমাম, জাতিসংঘ, অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি), দেশের রাষ্ট্রপতি, সরকার প্রধান ও প্রধান বিচারপতির হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেয়া হবে।

স্বাক্ষর আদায়ের প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানা যায়, এজন্য ৭ সদস্যের একটি কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়েছিল। যার প্রধান মাওলানা ফরিদউদ্দীন মাসঊদ। কমিটির নির্দেশনা অনুযায়ী বৈঠকে অংশগ্রহণকারী ৭০০জন ৬৪ জেলায় স্বশরীরে গিয়ে আলেম-ওলামাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন এবং ১০টি প্রশ্ন ও এসবের উত্তর দেখান, বোঝান। যারা এসবের সঙ্গে একমত, তারা নিজ হাতে নির্ধারিত কাগজে স্বাক্ষর, তারিখ দিয়েছেন।