মেইন ম্যেনু

শব্দ সংযোজন ও সঙ্গীতের খেলায় খীষ্ট্রফার প্রিন্স গমেজ

eteভূতে ভয় সবাই পেলেও তাতেই যেনো আকর্ষণ তরুণ সমাজের। আর এফএম রেডিও ও তরুণ সমাজ যুগলবন্দী সেই ২০০৪ সাল থেকে। আর এই কারণেই এফএম রেডিওগুলো তরুণদের কথা মাথায় রেখেই প্রচার করে আসছে ভূতের অনুষ্ঠানমালা। তার মধ্যে এশিয়ান রেডিও ৯০.৮ এফএম এর ‘ভৌতিক ৯০.৮ এফএম ’ নামের অনুষ্ঠানটি যেনো শ্রোতা মহলে এক অমীয় আয়োজন। জনপ্রিয় এই অনুষ্ঠানটির নেপথ্যে রয়েছে কিছু মানুষের কষ্টের অবদান। তার মধ্যে একজন ‘খ্রীষ্ট্রফার প্রিন্স গমেজ’। রেডিও, অনুষ্ঠান, ভূত, তরুণ সমাজ এগুলো দিয়ে খ্রীষ্ট্রফার প্রিন্স গমেজ কে পরিচয় করাতে চাচ্ছি না। বরং এটা বুঝাতে চাচ্ছি এগুলোর নেপথ্যে রয়েছে এই মানুষটি । তিনি এশিয়ান রেডিও ৯০.৮ এফএমের সিনিয়র সাউন্ড ইন্জিয়ার হিসেবে কর্মরত আছেন ।একাধিক সত্বাকে ধারণকারী একজন মানুষ যাকে বলা যায় তাকে। তবে পরিচয় দিতে ভালোবাসেন মিউজিশিয়ান হিসেবে। গুলশানের নিকেতনে খ্রীষ্ট্রফার গমেজ প্রিন্সের সাথে এক পরন্ত বিকেল জমে উঠেছিলো প্রতিবেদকের। কথা হয়েছে নানা দিক নিয়ে। প্রিন্স মিউজিক করছেন ১৯৮৮ সাল থেকে। জনপ্রিয় বহু ব্যান্ডের সাথে পথ চলেছেন এই সুদীর্ঘ সময়। পুরোনো কথা একদম নয় বর্তমানকে দিয়েই পরিচয় দিতে নাকি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন তিনি। চারুণ, ব্রাউনরাইস,অন্তপুর এর মত জনপ্রিয় ব্যান্ডগুলো তে বেস গিটারিস্ট বাজাচ্ছেন তিনি। সম্প্রতি ঈদ উল আযহায় চারুণের অ্যালবামও এসেছে বাজারে। প্রিন্স কাজ করছেন কিংবদন্তী শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনের মেয়ে বাধনের সাথে বেস গিটারিস্ট হিসেবে। আর ব্যাক্তিগত স্টুডিওতে কাজ তো আছেই। যদি একটু অন্যভাবে বলা যায়, কর্মব্যস্ত এই মানুষটির ছোটবেলায় ঢুঁ মারে প্রতিবেদক। প্রিন্সও তাতে খোশ গল্পে মেতে উঠে। খীষ্ট্রফার প্রিন্সের জন্ম ভারতের কলকাতায়। ছোট বেলার কথা তুলতেই তিনি বলেন, ‘আমি যখন ক্লাস ফোরে পড়ি তখন পরিবার সহ এদেশে চলে আসি।’ ‘ছোটবেলা থেকে শখ ছিলো ছবি আঁকা ও গান শোনা। মা-বাবাও প্রচুর গান শুনতেন। আমিও তখনকার হিন্দি, ইংলিশ গান শুনে সময় পার করতাম। সেই থেকে ভালো লাগা।’আর এই ভাল লাগাকেই সাথে রেখে বন্ধুদের ভাল কিছু প্রত্যাশায় এগিয়ে যেতে চায় খীষ্ট্রফার প্রিন্স গমেজ।