মেইন ম্যেনু

শরীয়তপুরে গভীর রাতে স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে নিলো স্ত্রী!

Shariatpur-Wife-Keta-Dilo-Purusango-Picশরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার বড় শিধলকুড়া গ্রামে স্ত্রী কেটে দিল স্বামীর পুরুষাঙ্গ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। স্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে ডামুড্যা থানা পুলিশ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, জেলার ডামুড্যা উপজেলার শিধলকুড়া ইউনিয়নের বড় শিধলকুড়া গ্রামে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে স্ত্রী মালেকা বেগম (৩৭) স্বামী খোকন সরদার (৪৫)‘র পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলেছে। কেটে ফেলে পাশের খালে ফেলে দেয়। বাড়ির লোকজন তাৎক্ষনিক ডামুড্যা স্বাস্থ্য কমম্পেক্সে ভর্তি করলে চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল হসপিটালে প্রেরণ করেন। এ ব্যাপারে খোকনের ভাই মনির সরদার বাদি হয়ে ডামুড্যা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, খোকন সরদারের স্ত্রী প্রায় ৯বছর যাবত সংযুক্ত আরব আমিরাতে কর্মরত ছিল। আমিরাত থেকে আসার পরে একই ইউনিয়নের ঢেঙ্গার বাড়ি গ্রামের পিতার বাড়িতে যেয়ে দ্বিতীয় স্বামীর সাথে বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটায়। এর পরে ৭ বছর পূর্বে খোকন সরদারের সাথে বিয়ে হয়। দাম্পত্ত জীবনে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে যার বয়স ৫বছর।

২০১৫ সালে চট্রগ্রামের একটি হিন্দু ছেলের সাথে মালেকা বেগমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কয়েকদিন আগে ছেলেটি মালেকার বাবার বাড়িতে আসে । স্বামী খোকন সরদার এ বিষয়টি জানতে পারলে স্বামী-স্ত্রী মাঝে ঝগড়া হয়। তাই বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত মালেকা বেগম এ ঘটনাটি ঘটায়।

খোকনের চাচাতো ভাই মোয়াজ্জেম সরদার বলেন, রাত আনুমানিক সোয়া ১টার দিকে হঠাৎ করে খোকনের বিকট চিৎকার শুনে ঘর থেকে বেড়িয়ে আসতেই দেখি খোকন ঘড় থেকে দৌড়ে বেড়িয়ে এসেছে। আমাকে বললো তোর ভাবি আমার পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলেছে। এ বলে অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পরে যায়। আমি বাড়ির লোকজন নিয়ে ডামুড্যা স্বাস্থ্য কমম্পেক্সে ভর্তি করি। উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা ঢাকা মেডিকেল হসপিটালে প্রেরণ করেন।

খোকনের ভাই মনির সরদার বলেন, আমার ভাবী চারিত্রিকভাবে খারাপ। বিভিন্ন ছেলেদের সাথে তার সম্পর্ক রয়েছে। তাই ভাইকে পুরুষাঙ্গ কেটে হত্যার চেষ্টা করেছে।

মালেকা বেগমের মা আমেনা বেগম বলেন, আমার মেয়ে প্রথমে সৈয়দ বস্তার শুকুর মাদবরকে বিয়ে করে। পরে শিপপুরের ওর খালাতো ভাই মনির মোল্লাকে বিয়ে করে। এর মধ্যে ৯ বছর বিদেশে ছিলো। বিদেশ থেকে আসার পরে খোকন সরদার আমার মেয়ের ঘরে আসলে এলাকার লোকজন ধরে বিয়ে করিয়ে দেয়।

খোকনের মা বলেন, চট্রগ্রামে একটি হিন্দু ছেলের সাথে মালেকার সম্পর্ক। কয়েকদিন আগে ছেলেটি আমাদের বাড়িতে আসে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রী ঝগড়া করে। আমার ছেলেকে মালেকা পঙ্গু করে দিয়েছে।

মালেকা বেগম বলেন, আমার বিচার আমি করেছি। আর কিছু চাওয়ার নাই।ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান চৌধুরী বলেন, এ ব্যাপারে ডামুড্যা থানায় একটি মামলা হয়েছে। আমরা মালেকা বেগমকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছি।