মেইন ম্যেনু

শাশুড়িকে বিয়ে করলেন জামাই, ঘটনায় বিস্মিত স্ত্রী-শ্বশুর

নিজের জামাইকে বিয়ে করে সকলকে চমকে দিলেন বিহারের মাধেপুরা জেলার বাসিন্দা ৪২ বছরের আশা দেবী। ঘটনায় মারাত্মক বিস্মিত আশার মেয়ে ১৯ বছরের ললিতা এবং তাঁর বাবা, যিনি দিল্লিতে কর্মরত।

ঘটনার সূত্রপাত মাসখানেক আগে। ২২ বছরের জামাই সুরজ যখন অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তখন মেয়েকে সাহায্য করতে সেখানে যান মা। জামাইয়ের সেবা করতে করতেই দুজনের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। আশার স্বামী যেহেতু কর্মসূত্রে দিল্লিতে থাকেন, তাই সেই সুযোগে একাধিকবার শাশুড়ির সঙ্গে গোপন সাক্ষাত্ও করেন জামাই।

সূত্রের খবর জুন মাসে শাশুড়ি-জামাই পালিয়ে গিয়েছিলেন, কিন্তু পরে তাঁরা ফের গ্রামে ফিরে আসেন। গ্রামে ফিরে আসার পর পঞ্চায়েত তাঁদের একসঙ্গে থাকার অনুমতিও দেয়। পঞ্চায়েত সদস্যদের মতে, তাঁরা যখন একে অপরকে পাগলের মতো ভালবাসেন, সেখানে তাঁদের আলাদা করে দেওয়ার কোনও মানেই হয় না।

বহু ঘাত-প্রতিঘাতের পর অবশেষে আদালতে গিয়ে বিয়ে করে, তাঁরা এখন একে অপরের সঙ্গেই রয়েছেন। তবে আশা এবং সুরজ তাঁদের নিজেদের প্রাক্তন স্ত্রী বা স্বামীর থেকে বিবাহ বিচ্ছেদে সম্মতি পেয়ে গেছেন কিনা, সেবিষয় কোনও তথ্য নেই। আশা যদিও দাবি করেছেন, তাঁর ললিতার সঙ্গে থাকতে কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু ললিতা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন তাঁরা একসঙ্গে থাকবেন না। মেয়েকে নিয়ে দিল্লি চলে যাওয়ার কথা ললিতার বাবার।