মেইন ম্যেনু

শাস্তি দেয়ায় ওস্তাদ চীনা বসরা…

কাজে ফাঁকি দিলে অধঃস্তনদের কমবেশি ধমক ধামক দিয়ে থাকেন সব অফিসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাই। কেউ কেউ আবার টুকটাক শাস্তিও দেন। কিন্তু কর্মচারীদের শাস্তি দেয়ার ক্ষেত্রে চীনা বসদের জুড়ি মেলা ভার। সে দেশের বসরা নাকি কর্মচারীদের স্কুলের বাচ্চাদের মত নিলডাউন আর হামগুড়ি দেয়ানোর মত শাস্তিও দিয়ে থাকেন। বিশ্বাস না হলে নিচের ছবিগুলো দেখুন।

গত শুক্রবার চীনা টুইটার ‘ওইবো’তে এসব ছবি প্রকাশিত হয়েছিল। এসব ছবি প্রকাশিত হওয়ার পর গোটা চীন জুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। ইউজাররা নানা মন্তব্য করতেও ছাড়েননি। ‘এমএমএম’ নামের এক ইউজার লিখেছেন,‘অনেক দিন আগে আমি এরকম এক কোম্পানিতে চাকরি করতাম। এখন ছেড়ে দিয়েছি। এসব বসরা হচ্ছেন মানসিক রোগী। এদের অধীনে কাজ করা যায়না।’

ছবিগুলো নেয়া হয়েছিল দেশটির জেনজৌ শহরের এক হ্রদের কাছ থেকে। এক কোম্পানির বিক্রিয় প্রতিনিধিরা তাদের জন্য বেধে দেয়া পণ্য বিক্রির মাসিক টার্গেট পূরণ করতে না পারায় তাদেরকে ওই বিশাল এলাকা জুড়ে হামাগুড়ি দিতে বাধ্য করা হয়েছিল।

এই ঘটনাটি ঘটেছিল চীনের জাতীয় দিবসের ছুটি চলাকালীন সময়ে। তখন সপ্তাহ ধরে ‍ছুটি থাকায় সেখানকার লোকজন সব বেড়াতে চলে যায়। তো বেচাকিনি হবে কোত্থেকে! কিন্তু এই বিবেচনা মাথায় ছিল না ওই কোম্পানির কর্তাব্যক্তিদের। পণ্য বিক্রির টার্গেট পূরণ করতে না পারায় কর্মচারীদের জেনজৌ শহরের রুয়ি হ্রদের আশপাশের ২৩ একর দীর্ঘ এলাকা জুড়ে হামাগুড়ি দিতে বাধ্য করেছিলেন। হামাগুড়ি দিতে দিতে অনেকের শার্ট এবং ট্রউজার ছিঁড়ে গিয়েছিল।

একজন তো লজ্জায় আর দুঃখে রাস্তার পাশে বসে হাপুস নয়নে কাঁদতে শুরু করেছিলেন। তখন তাকে সান্তনা দিতে এগিয়ে এসেছিলেন অন্য সহকর্মীরা। তবে ওই ‘নিষ্ঠুর’ কোম্পানির নাম জানা যায়নি। শাস্তি চলাকালে কোনোভাবেই যেন তাদের নাম বেরিয়ে না যায়, এদিকে তাদের কড়া নজর ছিল।