মেইন ম্যেনু

শিক্ষক হত্যাকান্ডে আতঙ্কে রাবি ক্যাম্পাস : এরপর কে?

ইয়াজিম ইসলাম পলাশ, রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে প্রতিবাদী মিছিল, সড়ক অবরোধ, সমাবেশ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিক্ষক সমিতি, রাবি ছাত্রলীগ, প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ হত্যাকা-ের পর শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদে উত্তাল ক্যাম্পাস। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এ ঘটনায় সকাল ১০টার দিকে সড়ক অবরোধ করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এরপর সাড়ে ১১টার দিকে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। এরপরে এ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মিছিল ও মানববন্ধন করেছে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীরা। হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে দুপুর ১২টায় সিনেট ভবনের সামনে সমাবেশ করেছে রাবি শিক্ষক সমিতি। সমাবেশ থেকে আগামীকাল রবিবার ক্লাস বর্জন ও সকাল ১০টায় প্রতিবাদ র‌্যালীর ঘোষণা দেওয়া হয়। পরবর্তী কর্মসূচি সন্ধ্যায় শিক্ষক সমিতির জরুরি সভায় নির্ধারণ করা হবে বলে জানানো হয়।

রাবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ আজম শান্তনুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তরা বলেন, ‘মুক্তবুদ্ধির চর্চা বাধাগ্রস্ত করতে বারবার আঘাত আসছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ওপরে। অসহায়ভাবে হত্যাকা-ের শিকার হচ্ছে শিক্ষকরা। সংস্কৃতিমনা শিক্ষকদের ওপর বারবার নেমে আসছে হত্যার খড়গ। তাই এ হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের যতক্ষণ না বিচারের আওতায় আনা হচ্ছে ততক্ষণ শিক্ষক সমিতির এ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

এসময় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ড. আনন্দ কুমার সাহা বলেন,‘ ড. এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকী অরণি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর একজন উপদেষ্টা ম-লীর একজন সদস্য ছিলেন। অরণি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে তার আত্মার শান্তি কামনা করছি। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে বলে আমরা আশা করছি। ’

এসময় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো শহীদুল্লাহ্ বলেন, ‘ ড. এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকী রাজনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন না। ব্যক্তিগত উদ্যোগে বর্ষবরণসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করতেন। তার ব্যক্তিগত কোনো শত্রু ছিলোনা তবে কয়েক মাস আগে তার কাছে চাঁদা চেয়ে হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি।’ এছাড়া দুপুর দেড়টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল করে রাবি শাখা ছাত্রলীগ।

শনিবার সকাল ৭টা ৪০মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার পথে রাজশাহীর শালবাগানের বটতলা এলাকায় শিক্ষক ড. এ এফ এম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে বাড়ির সামনে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সেকশন অফিসার ও আবৃত্তি সংগঠন ‘সুন্দরম’-এর পরিচালক হাসান রাজা বলেন, স্যার সেতার বাজাতেন। ঋতুভিত্তিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করতেন। তিনি অত্যন্ত নিরীহ প্রকৃতির মানুষ ছিলেন। কোনো ধর্ম বা ব্যক্তিকে কটাক্ষ করে কোনো লেখা তিনি লিখতেন না। এ ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকতেন। তিনি একজন নিরপেক্ষ মানুষ ছিলেন।

শিক্ষক রেজাউলের গ্রামের বাড়ি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার দরগামাড়িয়া গ্রামে। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সবার বড় ছিলেন।