মেইন ম্যেনু

শিবির পরিচালিত রেটিনায় ভর্তির পর নিখোঁজ হয় ‘জঙ্গি’ রিগান

কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানে ধরা পড়া রাকিবুল হাসান রিগান মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য কোচিং করার কথা বলে বাড়ি ছেড়েছিল। তার স্বজনরা জানতেন, এক বছর আগে বগুড়ায় শিবির নিয়ন্ত্রিত কোচিং সেন্টার রেটিনায় ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। এরপর একদিন হঠাৎ উধাও হয়ে যান তিনি।

হাসানের গ্রামের বাড়ি বগুড়া শহরেই। সরকারি আজিজুল হক কলেজসংলগ্ন জামিলনগর এলাকায় থাকতেন তিনি। তার বাবা রেজাউল করিম মারা গেছেন। মা সরকারি হাসপাতালের সেবিকা হিসেবে কাজ করেন।

২০১৫ সালে বগুড়ার সরকারি শাহ সুলতান কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর বগুড়া শহরে রেটিনা কোচিং সেন্টারে ভর্তি হন হাসান। কিন্তু ওই বছরের জুলাইয়ে নিখোঁজ হয়ে যান তিনি। এই ঘটনায় বগুড়া সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন তার মা। তবে সম্প্রতি র‌্যাবের প্রকাশিত ২৬২ জন এবং এর পরে ৬৭ জনের নিখোঁজের তালিকায় তার নাম নেই।

সরকারি শাহ সুলতান কলেজের অধ্যক্ষ এজাজুল হক জানান, ২০১৫ সালে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে হাসান পাস করে বের হয়ে যায়। এরপর আর এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সে আসেনি।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল বাসার বলেন, রাকিবুল হাসান ওরফে রিগ্যানের মাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দুপুরের দিকে থানায় নেওয়া হয়েছিল। ছেলের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

সোমবার রাতে কল্যাণপুরের পাঁচ নম্বর সড়কের ৫৩ নম্বর বাড়িতে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। মঙ্গলবার সকাল পাঁচটা ৫১ মিনিট থেকে ছয়টা ৫১ মিনিট পর্যন্ত এ অভিযানে নয় জন নিহত হয়। আহত অবস্থায় ধরা পড়ে হাসান। তাঁকে রাতেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

পুলিশ বলছে, জঙ্গি সংগঠন জেএমবির আস্তানা ছিল এটি। তবে হাসান পুলিশকে বলেছেন তিনি আইএসের সদস্য। কেবল তিনি নন, নিহত সবাই এই আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠীর সদস্য ছিলেন।



« (পূর্বের সংবাদ)