মেইন ম্যেনু

শিশু সাঈদ হত্যায় তিনজনের ফাঁসি

সিলেটে চাঞ্চল্যকর শিশু আবু সাঈদ হত্যা মামলায় তিনজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার সিলেট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুর রশিদ এ রায় দেন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, নুরুল ইসলাম রাকিব, আতাউর রহমান গেদা ও পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মাসুমকে খালাস দেওয়া হয়।

রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে সাঈদের বাবা আব্দুল মতিন বলেন, “আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়ায় আমি খুশি।”

এর আগে গতকাল রবিবার আসামি ও বাদী পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে রায়ের জন্য আজকের দিন ধার্য করেন বিচারক।

আদালতের বিশেষ পিপি আব্দুল মালেক জানান, গত ১৭ নভেম্বর আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে বিচার শুরুর নির্দেশ দেয়। বিচার শুরুর নয় কার্যদিসের মধ্যেই এই মামলার রায় ঘোষণা করা হলো।

গতকাল রায়ের তারিখ ঘোষণার সময় মামলার আসামি সিলেট বিমানবন্দর থানার সাবেক কনস্টেবল এবাদুর রহমান, সিলেট জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিব ও পুলিশের কথিত সোর্স আতাউর রহমান গেদা ও মাহিব হোসেন মাসুম আদালতে উপস্থিত ছিলেন বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের এ আইনজীবী।

গত ১৯ নভেম্বর এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় ২৬ নভেম্বর। এ সময় ৩৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৮ জনের জবানবন্দি শুনেছে আদালত।

আব্দুল মালেক বলেন, “সাক্ষী ও যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের মাধ্যমে আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ প্রমাণ করেছি। তাদের সর্বোচ্চ শাস্তিই হবে বলে আশা করেছিলাম।”

চলতি বছরের ১১ মার্চ নগরীর শাহ মীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র আবু সাঈদ অপহৃত হয়। পরে অপহরণকারীরা তার পরিবারের কাছে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এর পর ১৪ মার্চ রাতে নগরীর ঝর্ণার পাড় সুনাতলা এলাকার একটি বাসা থেকে সাঈদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনার পরদিন সাঈদের বাবা আব্দুল মতিন কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করেন।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর চারজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। এর মধ্যে তিন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।