মেইন ম্যেনু

শিয়া মসজিদে গুলির ঘটনায় আটক আরো ৪

বগুড়ার শিবগঞ্জে শিয়া মসজিদে বন্দুকধারীদের গুলিতে মুয়াজ্জিন নিহত হওয়ার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শনিবার আরো চারজনকে আটক করেছে র‌্যাব। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনার পর পুলিশ দুইজনকে আটক করে। এ নিয়ে এই ঘটনায় ছয়জনকে আটক করা হল।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করলেও তারা জড়িত রয়েছে কি না, এমন কোনো তথ্য জানাতে পারেনি পুলিশ ও র‌্যাব। বগুড়া র‌্যাব-১২ কোম্পানি কমান্ডার এ এসএম আজমল হোসেন খান জানান, আটককৃতরা স্থানীয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

আটককৃতদের মধ্যে একজনের নাম পাওয়া গেছে। তিনি হলেন বগুড়া সদর উপজেলার মোলামগাড়ি কওমি মাদ্রাসার পরিচালক শামসুল আলম।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আক্তার হোসেন জানান, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্নভাবে যেসব জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটেছে, সেগুলোর সঙ্গে এই হামলার মিল রয়েছে। তবে আইএস এর সম্পৃক্ততা রয়েছে কিনা তা এখনও নিশ্চিত করা যাচ্ছে না।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, জেলা জুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।
এদিকে গুলিবিদ্ধ হরিপুর গ্রামের বাসিন্দা আফতাব হোসেনকে (৪০) হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া গুলিবিদ্ধ শাহিনুর রহমান ও আবু তাহের বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার মাগরিবের নামাজের সময় মুসল্লিদের সঙ্গে ২০-২২ বছর বয়সী অপরিচিত তিন যুবক শিবগঞ্জ উপজেলার হরিপুর বাসস্ট্যা- শিয়া মসজিদে প্রবেশ করে। মাগরিবের নামাজ শেষে অনেক মুসল্লি এশার নামাজের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। ঠিক সেই মুহূর্তে ওই তিন যুবক তাদের লক্ষ করে গুলি ছুঁড়তে থাকে। গুলিতে মসজিদের মুয়াজ্জিনসহ চারজন আহত হন। তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর মসজিদের মুয়াজ্জিন মোয়াজ্জেম হোসেন (৭০) মারা যান।