মেইন ম্যেনু

শীতেও চুল থাকুক আকর্ষণীয়

ক্যারিয়ারের দিকে যতটা গুরুত্ব থাকে সৌন্দর্য রক্ষার দিকে অনেক পুরুষেরই তা থাকে না। অধিকাংশ পুরুষ দায় সারেন শুধু নিয়ম করে চুল কেটে আর শ্যাম্পু করে। কিন্তু বাড়তি যত্নের ব্যাপারে থাকে উদাসীনতা। অথচ দিনের বেশিরভাগ সময় বাসার বাইরে থেকে চুলের বারটা বাজিয়ে বসেন। একটা সময় দেখা দেয় চুলে খুশকি, চুল পড়া, অকালে টাক মাথা হওয়ার সমস্যা। বিশেষ করে শীতের এই সময়টাতে এসব সমস্যা বেশি হয়। তাই চুল থাকতে তার মর্ম বুঝে পেয়ে আপনিও ধরে রাখতে পারেন আকর্ষণীয় মাথাভরা চুল। আর তাই..

শ্যাম্পু নির্বাচন

অনেক পুরুষই আজেবাজে কিংবা সামঞ্জস্যহীন ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু ব্যবহার করে চুলের ক্ষতি করে বসেন। বাজারে বর্তমানে শুধু ছেলেদের চুলের উপযোগী অনেক মান সম্মত শ্যাম্পু পাওয়া যায়। সপ্তাহে কয়দিন শ্যাম্পু করতে হবে, চুলের ধরণের সঙ্গে মিলিয়ে কি ধরণের শ্যাম্পু বেছে নিতে হবে সে দিক নির্দেশনাও দেয়া থাকে এসব শ্যাম্পুতে। তাই নিজের চুলের ধরণের সঙ্গে মিলিয়ে ভালো একটি শ্যাম্পু বেছে নিন।

কন্ডিশনার

শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহারে চুল ঝরঝরে হয়ে ওঠে। তাই শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। কিন্তু কন্ডিশনার চুলের গোড়ায় না লাগানো ভালো। অনেকে আলাদা করে শ্যাম্পু লাগানোর ঝামেলায় যেতে চান না। তাছাড়া ছেলেদের ছোট চুল হওয়ায় কন্ডিশনার ব্যবহার করাও কষ্টের। সেক্ষেত্রে এক মগ পানিতে লেবুর রস দিয়েও চুল ধুয়ে নিতে পারেন। আবার কন্ডিশনার যুক্ত শ্যাম্পু হলে সব ঝামেলায় চুকে যায়।

মাথার ত্বক ম্যাসাজ

মাথায় তেল লাগানোর সময় বা শ্যাম্পু করার সময় আঙ্গুল দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মাথার ত্বক ম্যাসেজ করুন। এতে মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া দিনে কয়েকবার মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ালে ত্বকের রক্ত সঞ্চালন ঠিক থাকবে, চুলও ঠিকমতো পুষ্টি পাবে।

জেল বা স্প্রে নয়

ছেলেরা চুলে জেল বা হেয়ার স্প্রে ব্যবহার করেন। চুলে বেশি সময় জেল মেখে রাখলে তাতে সহজেই ময়লা ধুলোবালি আটকে যায়। এছাড়া লম্বা সময় ধরে জেল ব্যবহার করলে মাথার ত্বকের সমস্যা হতে পারে। তাই দীর্ঘ সময় বাইরে থাকতে হলে জেল ব্যবহার না করায় ভালো। আর যদি জেল ব্যবহার করতেই হয় তবে বাসায় ফিরে দ্রুত ধুয়ে ফেলতে হবে।