মেইন ম্যেনু

শীতের আগেই কুয়াশা, শেষে থাকবে শৈত্যপ্রবাহ

শীত আইসা গ্যাছে, কী লাগবো লইয়া যান স্যার। বাচ্চাদের জন্য ইসপেশাল আইটেম আছে, খুশি হইবো দিমু।

রাজধানীর ফুটপাতগুলোতে এখন এমন হাঁকডাক। বুঝাই যাচ্ছে তাহলে শীত পড়েই গেছে! ডিসেম্বরের শুরু থেকেই রাজধানীতে সকাল সন্ধ্যা কুয়াশা পড়তে শুরু করেছে।

অবশ্য দেশের উত্তরাঞ্চলে আরো আগে থেকেই অর্থাৎ অক্টোবর-নভেম্বর থেকেই শীতানুভূতি জাগিয়েছে। যদিও পঞ্জিকার পাতায় শীতকাল আসবে আরো ৯ দিন পর। আবার আবহাওয়া অধিদপ্তরের মাসিক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি মাসের মধ্যভাগ থেকে শীতের শুরু হলেও মাসের শেষার্ধ থেকে বইতে শুরু করবে শৈত্যপ্রবাহ। গত বুধবার আবহাওয়া অধিদপ্তরের মাসিক বৈঠকে প্রকাশিত আগামী এক মাসের পূর্বাভাসে এমন তথ্যই দেয়া হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি মাসের শেষে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এক থেকে দুটি মাঝারি (৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

তবে আগামী জানুয়ারিতে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বইতে পারে দেশের উত্তরাঞ্চলে।

এদিকে আবহাওয়ার ত্রৈমাসিক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, জানুয়ারি মাসে দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে এক থেকে দুটি মাঝারি(৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) অথবা তীব্র (৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস) মাত্রায় শৈত্যপ্রবাহ বইতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র দুই থেকে তিনটি মৃদু ও মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

এ বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক শাহ আলম বলেন, ‘কুয়াশা পড়লেও প্রকৃতিতে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তুলনায় খানিকটা বেশি রয়েছে। তবে মাসের আগামী দিনগুলোতে রাতের তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে কমবে। মাসের শেষদিকে রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের উত্তরাঞ্চল ও নদ-নদী অববাহিকায় মাঝারি বা ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। আর সারাদেশে একটানা দুই থেকে তিন দিন ঘন কুয়াশা পড়তে পারে।’