মেইন ম্যেনু

শুক্রবার থেকে রোজা শুরু

বুধবার দেশের কোথাও রমজান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। তাই মুসলমানদের রোজা রাখার মাস পবিত্র রমজান শুরু হচ্ছে শুক্রবার। আগামী ১৪ জুলাই দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল কদর পালিত হবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে বুধবার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি ও ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান।

রমজান মাস শেষেই মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর।

সভায় ধর্মমন্ত্রী জানান, সকল জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, আবহাওয়া অধিদফতর, মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশের কোথাও হিজরি ১৪৩৬ সনের রমজান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি।

১৮ জুন বৃহস্পতিবার শাবান মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হচ্ছে। ১৯ জুন শুক্রবার থেকে রমজান মাস শুরু হবে। আগামী ১৪ জুলাই মঙ্গলবার রাতে (রমজানের ২৭তম রাত) পবিত্র লাইলাতুল কদর পালিত হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ২০ রাকাত বিশিষ্ট তারাবি নামাজ শুরু হবে। রোজা রাখতে এদিন শেষ রাতে সেহরি (সেহরির শেষ সময় রাত ৩টা ৩৮ মিনিট) খাবেন মুসলমানরা। শুক্রবার প্রথম রোজার দিন ইফতারের সময় ৬টা ৫২ মিনিট।

সভায় ধর্ম সচিব চৌধুরী মো. বাবুল হাসান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা তছির আহাম্মদ, আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক মো. শাহ আলমসহ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, তথ্য মন্ত্রণালয়, স্পারসো, ঢাকা জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কাছে রমজান সংযম, আত্মশুদ্ধি ও ত্যাগের মাস। রমজান রহমত (আল্লাহর অনুগ্রহ), মাগফেরাত (ক্ষমা) ও নাজাত (দোজখের আগুন থেকে মুক্তি)- এ তিন অংশে বিভক্ত। এ মাসে সুবেহ সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার ও স্ত্রী-সহবাস থেকে বিরত থাকার মাধ্যমে রোজা পালন করেন মুসলমানরা।

এ মাসের শেষ অংশে রয়েছে হাজার মাসের এবাদতের চেয়েও উত্তম লাইলাতুল কদরের রাত। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী এ মাসে প্রতিটি নেক আমলের সওয়াব আল্লাহ ৭০ গুণ বাড়িয়ে দেন।