মেইন ম্যেনু

শুভ জন্মদিন আশরাফুল

আজ ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুলের ৩২তম জন্মদিন। ৩৩ এ পা রাখলেন জাতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক।

১৯৮৪ সালের এই দিনে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। জন্মের পর থেকে ঢাকায় আশরাফুলের বেড়ে উঠা। বর্তমানে থাকেন বনশ্রীতে। তার ডাকনাম নাম ‘অ্যাশ’।

বল বয় থেকে আজ বিশ্বক্রিকেটের সর্বস্তরে পরিচিত আশরাফুল। অবশ্য বর্তমানে ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে নিষিদ্ধ আছেন তিনি। আগামী আগস্টে তার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবে। তখন জাতীয় দল ও ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশগ্রহণের অনুমতি মিলবে আশরাফুলের। সেই অপেক্ষাতেই টেস্ট ক্রিকেটের সবচেয়ে কম বয়সে সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া আশরাফুল।

ক্রিকেটাঙ্গনে ধূমকেতু হয়ে আশরাফুলের আগমণ। নিজের প্রথম ম্যাচেই রেকর্ড গড়েন ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান। এরপর তার হাত ধরে অগনিত সাফল্য বাংলাদেশ ক্রিকেটের। ২০০৫ সালে কার্ডিফে অস্ট্রেলিয়া বধের কাব্য আশরাফুলের রচনা। ২০০৭ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর নায়ক আশরাফুল। ওই বছরই আশরাফুলের নেতৃত্বে থাকা বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে হারিয়েছিল। এছাড়া ছোট-বড় অনেক সাফল্যই আছে যা আশরাফুলকে বাংলাদেশের ক্রিকেটের ধ্রুবতারার জায়গাটি দিয়েছে।

জাতীয় দলের হয়ে আশরাফুল ৬১ টেস্ট ও ১৭৭ ওয়ানডে ও ২৩ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। টেস্টে ৬ সেঞ্চুরি ও ৮ হাফসেঞ্চুরিসহ ২ হাজার ৭৩৭, ওয়ানডেতে ৩ সেঞ্চুরি ও ২০টি হাফসেঞ্চুরিসহ ৩ হাজার ৪৬৮ এবং ২৩টি টি-টোয়েন্টিতে ২টি হাফসেঞ্চুরিসহ ৪৫০ রান করেছেন অ্যাশ। এ ছাড়া বল হাতে টেস্টে ২১, ওয়ানডেতে ১৮ এবং টি-টোয়েন্টিতে ৮ উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি এ অফস্পিনার।

আশরাফুলের সংক্ষিপ্ত খেলোয়াড় জীবন:

• ২০০১ সালের ৮ সেপ্টেম্বর আশরাফুল কনিষ্ঠতম খেলোয়াড় হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে সেঞ্চুরির করার রেকর্ড করেন।

• ২০০১ সালে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে আশরাফুলের ওয়ানডে অভিষেক হয়।

• ২০০৫ সালের ক্রিকেট পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্মরণীয় জয়ে আশরাফুল ১০০ রান করেন।

• ২০০৭ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ২৪ গড়ে ২১৬ রান করে আশরাফুল টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান স্কোরার হন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে নায়কোচিত ইনিংস উপহার দেন অ্যাশ।

• ২০০৭ বিশ্বকাপের পর তিনি শাহরিয়ার নাফিসের স্থলে দলের সহ-অধিনায়ক নির্বাচিত হন। ভারতের বিপক্ষে টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সিরিজের পর তাকে টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটে দলের অধিনায়ক নির্বাচিত করা হয়।

• আশরাফুলই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসে দ্বিতীয় কনিষ্ঠতম অধিনায়ক।

• টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে শ্রীলংকার বিরুদ্ধে আশরাফুলের অভিষেক হয় ২০০৭ সালে।

• আশরাফুল ২০০৯ সালে ভারতের আইপিএল টুর্নামেন্টে মু্ম্বাই ইন্ডিয়ানসের পক্ষে একটি মাত্র ম্যাচ খেলেন।

• বিপিএলে দ্বিতীয় বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে সেঞ্চুরি হাঁকান আশরাফুল।

• ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ১৯৪ রান করেন আশরাফুল। যা ছিল সে সময় পর্যন্ত বাংলাদেশের টেস্টে সর্বোচ্চ রান। অবশ্য ওই টেস্টে মুশফিক প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ নেন।

• এরপর ফিক্সিং কান্ডে জড়িয়ে পাঁচ বছরের জন্যে নিষিদ্ধ হন আশরাফুল।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট