মেইন ম্যেনু

শুভ জন্মদিন ফেরদৌস

নব্বই দশকের মাঝামাঝি সময়ে রোমান্টিক হিরো হিসেবে ঢাকাই চলচ্চিত্রে চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদের অভিষেক ঘটে। এরপর চমৎকার অভিনয় দিয়ে দুই বাংলায় জনপ্রিয়তা লাভ করেন তিনি। বিশেষ করে দুই বাংলার যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘হঠাৎ বৃষ্টি’ দিয়েই বাজিমাত করেছিলেন ফেরদৌস।

বাসু চ্যাটার্জির পরিচালনায় প্রিয়াংকার বিপরীতে এই ছবিতে ফেরদৌস ছিলেন অনবদ্য। বলা হয়ে থাকে, দীর্ঘ ক্যারিয়ারের সেরা ছবিটি তিনি করে ফেলেছেন শুরুতেই। সেই প্রেমিক আর প্রেমের আকুতিতে আর কোনো নায়ককে নিয়ে এতোটা আলোচনা হয়নি বাংলা ছবিতে; যতোটা আলোচনায় ছিলেন ফেরদৌস। এখনো ছবিটির প্রতি, ছবির গানগুলোর প্রতি দর্শকের অন্য রকম ভালো লাগা।

আজ এই নন্দিত চিত্রতারকার জন্মদিন। আওয়ার নিউজ বিডি’র পক্ষ থেকে তার জন্মদিনে রইল ভালোবাসা মিশ্রিত শুভেচ্ছা।

এবারের জন্মদিন উপলক্ষ্যে তেমন কোনো বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকছে না বলে জানিয়েছেন ফেরদৌস। পুরো দিনটি স্ত্রী সন্তান, মা ও খুব কাছের কিছু প্রিয়মুখদের নিয়ে ঘরোয়াভাবে উদযাপন করার বিশেষ পরিকল্পনা আছে বলেও জানান তিনি।

জন্মদিনে সবার কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়ে ফেরদৌস আহমেদ বলেন, ‘সবার দোয়া ও ভালোবাসা নিয়ে আজকের দিনটি ভালোভাবে কাটাতে চাই। আগামী দিনগুলোতে ভালো ভালো কাজও করতে চাই। পরিবার পরিজন নিয়ে ভালো থাকতে চাই। জন্মদিনে এই প্রত্যাশা।’

চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী এই অভিনেতা আরও বলেন, ‘আমি বিশেষত বলতে চাই আমার চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারে কখনোই ঘটা করে জন্মদিন উদযাপন করা হয়নি। আমি লজ্জাবোধ করি। তাছাড়া জন্মদিন এলে আমার বাবার কথা খুব মনে পড়ে। মনটা খারাপ হয়ে থাকে। ছোটবেলায় নিজের জন্মদিনে বাবার কাছে নানানরকম বায়না থাকতো আমার। হয়তো বাবা বেঁচে থাকলে এখনো কোনো না কোনো বায়না থাকতো।’

এদিকে চিত্রনায়ক ফেরদৌসের হাতে বর্তমানে এক ডজন নতুন ছবির কাজ রয়েছে। সেগুলো নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। এরমধ্যে রয়েছে ‘পোস্টমাস্টার ৭১’, ‘লিডার’, ‘মেঘকন্যা’, ‘প্রাচীর পেরিয়ে’, ‘পুত্র’, ‘বাদশা’, ‘কতদিন দেখিনা তোমায়’ ইত্যাদি।