মেইন ম্যেনু

শূকরের দেহে তৈরি হবে মানুষের অঙ্গ!

শূকরের দেহে মানুষের অঙ্গ তৈরির গবেষণা করছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা। এর ফলে বিশ্বব্যাপী প্রতিস্থাপনযোগ্য অঙ্গের স্বল্পতা দূর হবে বলে দাবি করেছেন গবেষকরা।

বিবিসি জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা শূকরের শরীরে মানুষের অঙ্গ তৈরির গবেষণা করছেন। নির্দিষ্ট কোনো অঙ্গ তৈরি করতে শূকরের শরীরে মানুষের স্টেম সেল ঢোকানো হবে।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা বলেন, স্টেম সেল ঢুকিয়ে দেওয়া শূকর সাধারণভাবেই বেড়ে উঠবে। তবে নির্দিষ্ট সময় পর অঙ্গ পূর্ণতা লাভ করলে নির্দিষ্ট অঙ্গ কেটে নেওয়া হবে।

গবেষকরা বলেন, শূকরের ভ্রূণ তৈরি হওয়ার ২৮ দিন আগেই মানুষের স্টেম সেল প্রাণীটির শরীরে ঢুকিয়ে দেওয়া হবে। এর ফলে চিমেরিক ভ্রূণ তৈরি হবে।

গবেষণা হবে দুটি পর্যায়ে। প্রথম পর্যায়ে জিন প্রকৌশলের মাধ্যমে নির্দিষ্ট ডিএনএ সরিয়ে নেওয়া হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে ভ্রূণের বিকাশ ঘটিয়ে শূকরের দেহে তৈরি হবে মানুষের অগ্ন্যাশয়ের মতো অঙ্গ।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষক পাবলো রস বলেন, তাঁরা আশা করেন, শূকরের শরীরের সব কোষ এই প্রাণীকোষে তৈরি হলেও নির্ধারিত অঙ্গ (এ ক্ষেত্রে অগ্ন্যাশয়) তৈরি হবে সম্পূর্ণই মানবকোষে। আর ওই নির্দিষ্ট অঙ্গ মানুষের শরীরের প্রতিস্থাপন করা যাবে।

তবে এরই মধ্যে শূকরের দেহে মানুষের অঙ্গ তৈরির গবেষণা নিয়ে খোদ যুক্তরাষ্ট্রেই বিতর্ক দেখা দিয়েছে। গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসা গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ প্রাণীদেহে মানব অঙ্গ তৈরির গবেষণায় অর্থায়ন বন্ধের নির্দেশ দেয়। এই প্রতিষ্ঠানের গবেষকদের ভাষ্য হলো, পরীক্ষায় কোনো সমস্যা দেখা দিলে শূকরের মস্তিষ্কের মানুষের কোষের বিকাশ ঘটতে পারে।