মেইন ম্যেনু

‘শেখ হাসিনা বিশ্বের উজ্জ্বল নক্ষত্র’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘বিশ্বের উজ্জ্বল নক্ষত্র’ বলে আখ্যা দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। তিনি বলেছেন, ‘আমরা ’৯৬ সালে যখন ক্ষমতায় এলাম, তখন দেশে বন্যা হয়েছিল। তখন শেখ হাসিনা নয়টা মাস ২০ কেজি করে চাল দিয়েছেন। বিদেশ থেকে চাল কিনে এনে দিয়েছেন। অথচ তখন আমরা খাদ্যে স্বয়ং-সম্পূর্ণ ছিলাম না। কিন্তু বাপের বেটি পিছায় নাই। এখন আল্লাহর রহমতে আমরা খাদ্যে স্বয়ং-সম্পূর্ণ। এমনকি শ্রীলংকায় আমরা চাল রপ্তানি করি। নেপালে ভূমিকম্প হয়েছে, আমরা চাল সাহায্য পাঠিয়েছি। আল্লাহ এই দিনগুলো দেখার জন্যই রাজনীতিতে আমাদের এতদূর এনেছেন। শেখ হাসিনা সব হারিয়েও বাংলাদেশের রাজনীতিতে আজ বিশ্বের উজ্জ্বল নক্ষত্র।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ নির্বাচনি এলাকা শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রূপনারায়ণকুড়া ইউনিয়ন পরিষদে আয়োজিত ১০ কেজি করে স্পেশাল ভিজিএফের চাল বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্য দানকালে বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘৯২ দিন মানুষ পুইড়া, আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী কেরির কাছে তিনি নালিশ করলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র নাই। ইউনিয়ন পরিষদ ইলেকশন হইলো, উপজেলা পরিষদ ইলেকশন হইলো, বাংলাদেশে হরদম ইলেকশন হইতাছে। আপনি আসেন নাই, এটা আপনার বিষয়। এখন ঠগে (হেরে) নালিশ করছেন আপনি আমেরিকার কাছে। নালিশ কইরা বালিশ পাইছেন। আর তো কিছু পান নাই। কাজেই এইগুলো নিয়া আর বেশি হৈ-চৈ কইরেন না। এইগুলো শুনে মানুষ হাসে, দুনিয়া হাসে- এটা আপনার বুঝা দরকার।’

বুধবার কুড়িগ্রামের চিলমারিতে ১০ টাকা দরে চাল বিতরণের কথা উল্লেখ করে বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘১০ টাকায় ৩০ কেজি করে চাল সারা বাংলাদেশে ৫০ লাখ লোক পাবে। ভাদ্র, আশ্বিন, কার্তিক, ফাল্গুন ও চৈত্র এই পাঁচ মাস। অর্থাৎ যেসময় একটু টান (অভাব) থাকে।’

এসময় তিনি দলীয় নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিদের সতর্ক করে বলেন, ‘কারো খারাপ কাজের দায় আওয়ামী লীগ নেবে না, পার্টি নেবে না। যার তার খারাপ কাজের দায় তাকেই নিতে হবে।’

মন্ত্রী দিনব্যাপী নালিতাবাড়ী উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ১৫ হাজার ২৫৭ জনের মাঝে ১০ কেজি করে এবং নকলা উপজেলার উরফা ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের মাঝে বিনামূল্যে স্পেশাল ভিজিএফের চাল বিতরণ করেন। এছাড়াও মন্ত্রীর স্বেচ্ছাধীন তহবিল থেকে নালিতাবাড়ীর পুড়ে যাওয়া আট বাড়ি মালিককে মোট ৫১ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য, ৪টি কলেজের প্রতিটিকে ৫৪ হাজার করে টাকা ও ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪৫ হাজার করে আর্থিক অনুদান দেন।

এসময় সঙ্গে ছিলেন শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আরিফুল ইসলাম খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাউদ্দিন সিকদার, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) লাবনী খন্দকার, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আশরাফ হোসেন, নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম মুখলেছুর রহমান রিপন, ভাইস চেয়ারম্যান আছমত আরা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তরফদার সোহেল রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউল হোসেন মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হকসহ সরকারি কর্মকর্তা ও দলীয় নেতৃবৃন্দ।