মেইন ম্যেনু

শেষ সময়ে দা বটি ছুরি কিনতে ভিড়

কোরবানির পশু জবাই ও গোসত টুকরো করতে ধারালো দা-বটি-ছুরি-চাকু-চাপাতির চাহিদা ঈদ এলেই অনেকগুনে বেড়ে যায়। আর এ চাহিদা পূরণ করতে এগুলো তৈরি এবং পুরানোগুলো শান দিতে শেষ সময়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন কারিগররা। তাই এসব বিক্রির ধুম পড়েছে রাজধানীতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন কামারের দোকান ও ফুটপাতে।

কামারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ শিল্পের প্রাধান উপকরণ লোহা, ইস্পাত ও কয়লার দাম বেড়ে যাওয়ায় কামাররা এখন বিড়ম্বনা পড়েছেন। কারণ এ বছর এসব বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে এতে করে ক্রেতারাও অসন্তুষ্ট হচ্ছেন। প্রতিবছর কোরবানির ঈদের মৌসুমেই তাদের ব্যবসা হয়। কিন্তু প্রতিবছরই এসবের দাম বাড়তে থাকে।

আগুনের শিখায় লোহাকে পুড়িয়ে তৈরি করা এসব ছুরি, দা, বটি, চাপাতি দিয়ে পশু কোরবানির পাশাপাশি গোসত কাটার জন্য এসব কিনতে এখন কামারের দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। নিজের প্রয়োজন মতো এসব কিনছেন তারা। তবে ক্রেতার অভিযোগ করে বলছেন, এ বছর এগুলোর জিনিসের দাম অনেক বেশি রাখা হচ্ছে।

ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ব্যস্ত এসব কামারারা বলছেন, এ বছর প্রধান কাঁচামাল কয়লার সংকট দেখা দিয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী কাঁচামাল না পাওয়ায় উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে। অন্যদিকে খরচও বেশি হচ্ছে।

রাজধানীর মুগদাপাড়ায় ছুরি, দা, বটি, চাপাতির দোকানে সাজিয়ে রেখেছেন দোকানি সিদ্দিক আহমেদ। তিনি বলেন, বেশ কিছু দিন যাবত ব্যবসা ভালোই হচ্ছে। তবে শেষ সময়ে গতকাল ও আজ বিক্রি মোটামুটি বেড়ে গেছে।

কেমন দামে বিক্রি হচ্ছে জানতে চাইলে সিদ্দিক আহমেদ বলেন, চাপাতি মানভেদে ৫৫০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি। অন্যদিকে চাকু বটি, ছুরি ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।



(পরের সংবাদ) »