মেইন ম্যেনু

শোলাকিয়া ঈদগাহের পাশে হামলা, ২ পুলিশসহ নিহত ৪

কিশোরগঞ্জে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে দুই পুলিশ কনস্টেবল ও এক নারীসহ চারজন নিহত হয়েছেন। এ সময় ছয় পুলিশসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ জন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে এ সংঘর্ষ ঘটে।

নিহতরা হলেন পুলিশ কনস্টেবল জহিরুল ও আনসারুল, গৃহবধূ ঝর্ণা রানী ভৌমিক এবং এক হামলাকারী। তার নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

হামলায় আহতরা হচ্ছেন- এসআই নয়ন মিয়া ও কনস্টেবল প্রশান্ত, জুয়েল, রফিকুল, তুষার ও মশিউর। পথচারী তিনজন হচ্ছেন- আব্দুর রহিম, হৃদয় ও মোতাহার। আহত অন্য পথচারীরর নাম জানা যায়নি।

গুরুতর আহত ছয় পুলিশ সদস্যকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে ময়মনসিংহ সিএমএইচে স্থানান্তর করা হয়। সিএমএইচ থেকে তাদের হেলিকপ্টারে করে ঢাকা পাঠানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সোয়া ৯টায় শোলাকিয়া ঈদ জামাতের ইমাম মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদের হেলিকপ্টার আজিমুদ্দীন স্কুল মাঠে নামার সঙ্গে সঙ্গেই সন্ত্রাসীরা ককটেল হামলা চালায়।

পুলিশ তাদের ধাওয়া করলে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় সন্ত্রাসীদের গুলি ও ককটেল হামলায় কনস্টেবল জহিরুল ও এক হামলাকারী নিহত ও সাত পুলিশসহ ১০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে আনসারুল ময়মনসিংহ সিএমএইচে মারা যান।

শোলাকিয়া মাঠে যেখানে দেশের বৃহত্তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সেখানে র‌্যাব, পুলিশ ও আনসারের বিপুল সংখ্যক সদস্য উপস্থিত আছেন। ফলে সেখানে নিরাপত্তার কোনো বিঘ্ন ঘটেনি। তবে আজিমুদ্দীন স্কুল মাঠে সংঘর্ষের ঘটনায় শোলাকিয়ায় আগত মুসল্লিদের মধ্যে ভীতির সঞ্চার হয়।