মেইন ম্যেনু

শ্যামনগরে কৃষি জমিতে ধানের পাতা সংকট

শ্যামনগর উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় আমন মেীসুমে কৃষি জমিতে বীজ ধানের পাতার সংকট চলছে।

উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী,নওয়াবেঁকী,গাবুরা,পদ্মপুকুর,দাতিনাখালী,আটুলিয়া সহ অন্যান্য এলাকায় আমন মেীসুমে কৃষি জমিতে বীজ ধানের পাতা রোপন করতে যেয়ে অনেক কৃষক পাতার সংকটে পড়েছেন।সংকটের ফলে মুন্সিগঞ্জ,ধানখালী,জেলেখালী অন্যান্য স্থান থেকে কৃষকদের নিকট থেকে পাতা ক্রয় করে জমি রোপন করছেন।

নওয়াবেঁকী এলাকার আমন চাষি মালেক গাজী,মুজিবর রহমান,আটুলিয়ার জগবন্ধু থান্দার জানান আমন জমি রোপন করতে যেয়ে বীজ ধানের পাতা সংকটের কারণে মুন্সিগঞ্জ ধানখালী থেকে প্রায় দেড়/দুই হাজার টাকার পাতা ক্রয় করে জমি রোপন করছেন।

মালেক গাজী বলেন তার ১০ বিঘা,মুজিবর এর ৯ বিঘা ,নান্টু গাজীর প্রায় ১২ বিঘা জমির ধানের পাতার সংকট থাকায় পাতা ক্রয় করেছেন।ধানখালী গ্রামের আমন বীজ ধানের পাতা বিক্রেতা খোকন চন্দ্র বলেন তিনি ৭৫০ টাকা প্রতি ৫ কেজি ধানের পাতা বিক্রয় করেছেন।বর্তমানে এর চাহিদা বেশী থাকায় অনেকে কম বেশী টাকায় বিক্রী করছেন বলে কৃষকরা জানান।

এদিকে ধানের পাতার সংকটের কারণ হিসেবে কৃষকরা বলেন অতিবৃষ্টি,জলাবদ্ধতা থাকায় বীজ ধানের পাতা মারা যায়।কৃষকরা আরো বলেন অনেক জমিতে পানি নিস্কাসনের সুষ্ঠ ব্যবস্থা না থাকায় পাতা পচে মারা গেছে।পাতা সংকট ,অতিবৃষ্টির সহ অন্যান্য কারণে কৃষকরা আমন জমি রোপনে গত বছরের তুলনায় এবার পিছিয়ে আছেন বলে কৃষকরা মতামত প্রকাশ করেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায় এবার উপজেলায় আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১৬ হাজার ২শত ৫০ হেক্টর।এর মধ্যে উফসি ১৫ হাজার ৮ শত ও স্থানীয় ৪ শত ৫০ হেক্টর।উপজেলার কৃষকদের প্রধান ফসল আমন এ ফসলকে ঘিরে কৃষকরা নতুন স্বপ্ন দেখে থাকেন।যাতে কৃষকরা এ ফসলকে সুষ্ঠভাবে ঘরে তুলতে পারেন সে লক্ষ্যে দিন রাত পরিশ্রম করে চলেছেন।