মেইন ম্যেনু

শ্রীলঙ্কার লক্ষ্য সিরিজ, পাকিস্তানের লক্ষ্য সিরিজ ও র‌্যাংকিং

উন্নতির লক্ষ্য নিয়ে টেস্ট সিরিজ শেষে এবার ওয়ানডে লড়াইয়ে নামছে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান। পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আগামীকাল মুখোমুখি হবে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান। ডাম্বুলায় বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হবে খেলাটি। তিন ম্যাচের টেস্টে সিরিজে সব ধরনের আনন্দই দিয়েছে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান। লড়াই, উত্তেজনা, শঙ্কা, রোমাঞ্চ সবই। প্রথম থেকে তৃতীয় টেস্ট পর্যন্ত সবই ছিল সদ্য শেষ হওয়া সিরিজে। আর সেখানে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছে পাকিস্তান।
দারুণভাবে কলম্বো টেস্ট জিতে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নেয় পাকিস্তান। সিরিজের প্রথম টেস্টও জিতেছিল পাকিস্তান। তবে দ্বিতীয় টেস্ট জিতে সিরিজে সমতা এনেছিল শ্রীলঙ্কা। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় শেষ টেস্টটি দাপটের সাথেই জিতেছে পাকিস্তান।
তাই টেস্ট সিরিজ জয়ের সুখ-স্মৃতি নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শুরু করছে পাকিস্তান। সিরিজে দুই দলের পাল্লা সমান-সমান। তাই ওয়ানডে সিরিজটিও ছড়াবে উত্তেজনার আবহ। তবে পাল্লাটা সমান সমান হলেও, চিন্তা রেখাটা কিন্তু কপালে অনেক বেশি বড় পাকিস্তানের।
কারণ বর্তমানে ওয়ানডে র‌্যাংকিং-এ ৯ নম্বরে রয়েছে পাকিস্তান। ২০১৭ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলতে হলে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত র‌্যাংকিং-এ আট নম্বরের মধ্যে থাকতে হবে তাদের। সে জন্য সাত ও আট নম্বরে থাকা যথাক্রমে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পেছনে ফেলতে হবে পাকিস্তানকে। তবে কাজটি বেশ কঠিনই। কাজটি সহজ করতে হলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খুবই ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে পাকিস্তান।
সেই ভালো খেলাটা কেমন হতে পারে পাকিস্তানের, তার একটা নমুনা পরিসংখ্যানের মাধ্যমে দেওয়া যেতেই পারে। এই পরিসংখ্যানের সাথে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার সিরিজও জড়িত।
১. বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৩-০ ব্যবধানে হারে, তবে বাংলাদেশের পয়েন্ট হবে ৯০। সে ক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতলেই, বাংলাদেশকে টপকে যাবে পাকিস্তান। কারণ তখন পাকিস্তানের পয়েন্ট হবে ৯২।
২. আর বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৩-০ ব্যবধানে হারে এবং পাকিস্তান ৩-২ ব্যবধানে সিরিজ জিতে, তবে বাংলাদেশের সাথে তাদের পয়েন্ট সমান ৯০ হবে। সে ক্ষেত্রে ষড়যন্ত্র করে জিম্বাবুয়ের মাটিতে আয়োজন করা সিরিজটি হবে পাকিস্তানের জন্য লাকি টুর্নামেন্ট।
৩. আর যদি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি ম্যাচ জিতে যায় বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশকে টপকাতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৫-০ ব্যবধানে জিততে হবে পাকিস্তানকে। টপকালেও বাংলাদেশের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নিশ্চিত হবে। নিশ্চিত হবে পাকিস্তানের। তখন সে ক্ষেত্রে ষড়যন্ত্র করে জিম্বাবুয়ের মাটিতে আয়োজন করা সিরিজটির গুরুত্ব প্রায়ই শেষ হয়ে যাবে।
তাই শ্রীলঙ্কার চাইতে পাকিস্তানের জন্য সিরিজটি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এমনটা স্মরণে রেখে পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলী বলেন, ‘আমাদের প্রধান লক্ষ্য সিরিজ জয়। তবে সেটি খুব ভালোভাবে। অর্থাৎ বড় ব্যবধানে সিরিজ জিততে হবে আমাদের। সেটি সম্ভব না হলে র‌্যাংকিং ও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নিয়ে বেকাদায় পড়তে হবে আমাদের। দলের সবার সাথে এটি নিয়ে আলাপ-আলোচনা হয়েছে। সবাই যার যার খেলাটা খেলতে পারলে, লক্ষ্য পূরণ করা সম্ভব।’
র‌্যাংকিং বা চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নিয়ে চিন্তা নেই শ্রীলঙ্কা। তাই স্বাগতিক অধিনায়কও বেশ নির্ভার। তারপরও সিরিজ নিয়েই ভাবছেন লঙ্কান দলপতি অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ, ‘টেস্ট সিরিজে ভালো খেলেও আমরা হারলাম। তবে ওয়ানডে সিরিজে এমনটি হবে না। বিশ্বকাপের পর প্রথম ওয়ানডে সিরিজ খেলতে নামছি আমরা। সিরিজটি আমাদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সিরিজে ভালো করতে হবে। এবারের দলটি পুরোই তারুণ্যনির্ভর। তাই এই দল নিয়ে ভালো করাই প্রধান লক্ষ্য আমাদের। টেস্ট সিরিজ হারের দুঃখটা ওয়ানডে সিরিজ জিতেই ভুলতে চাই।’
শ্রীলঙ্কা স্কোয়াড (সম্ভাব্য) : অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ (অধিনায়ক), দিনেশ চান্ডিমাল, তিলকারত্নে দিলশান, নুয়ান প্রদীপ, সুরঙ্গ লাকমাল, লাসিথ মালিঙ্গা, সাচিত্র পাথিরানা, কুশাল পেরেরা, থিসারা পেরেরা, সেকুজ্জি প্রসন্ন, আশান প্রিয়াঞ্জন, সাচিত্রা সেনানায়েকে, মিলিন্দা শ্রীওয়াদানা, উপুল থারাঙ্গা ও লাহিরু থিরিমান্নে।
পাকিস্তান স্কোয়াড (সম্ভাব্য) : আজহার আলী (অধিনায়ক), সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), আহমেদ শেহজাদ, আনোয়ার আলী, আসাদ শফিক, বাবর আজম, বিলাল আসিফ, এহসান আদিল, ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ হাফিজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান, মোহাম্মদ ইরফান, মুক্তার আহমেদ, রাহাত আলি, শোয়েব মালিক ও ইয়াসির শাহ।