মেইন ম্যেনু

শ্রীলঙ্কায় হাফিজদের উপর হামলার ঘটনায় যা লিখল ভারতীয় মিডিয়া

শ্রীলঙ্কায় ক্রিকেট লড়াইয়ে ব্যস্ত ছিল পাকিস্তান। ৩১৭ রানের বিশাল টার্গেট লঙ্কানদের দেয় পাকিস্তান। এর জবাবে ব্যাট করতে নেমে একের পর এক উইকেট হারায় লঙ্কানরা।

আর বিপত্ত্বিটা বাধে এখানেই। ১৫৮ রানেই যখন শ্রীলঙ্কার ৭ উইকেট নেই, তখন গ্যালারি থেকে পাকিস্তানের খেলোয়াড়দের পাথর ছোড়া হয়। গ্যালারিতে পাকিস্তানের এক দর্শককে মারধর করা হয়।

পাথর ছোড়ায় খেলতে অস্বীকৃতি জানান পাক ক্রিকেটাররা। একপর্যায়ে তারা মাঠের মাঝখানে এসে জড়ো হয়ে বসে থাকেন। এতে খেলা বন্ধ থাকে প্রায় ৪০ মিনিট।

শ্রীলঙ্কার মাটিতে হাফিজদের উপর বর্বর হামলার ঘটনায় ভারতের জনপ্রিয় পত্রিকা কলকাতার প্রতিবেদন নিচে তুলে ধরা হলো। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তৃতীয় ওয়ানডে জিতে সিরিজে ২-১ এগিয়ে গেল পাকিস্তান৷ রোববার আজহার আলিদের কাছে ১৩৫ রানের লজ্জাজনক হার হয় লঙ্কাবাহিনীর৷

৩১৭ রান তাড়া করে জেতা যে প্রায় অসম্ভব, তা বেশ বুঝতে পারছিলেন কলম্বোর প্রেমদাসা স্টেডিয়ামে উপস্থিত দর্শকরা৷আর সেই রোষই তাঁরা উগড়ে দিলেন মাঠের ভিতর৷

শ্রীলঙ্কা তখন ৭ উইকেট হারিয়ে ১৫৮ রান তুলেছে৷ততক্ষণে ম্যাচের ভবিষ্যৎ প্রায় স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে৷ সেই সময়ই গ্যালারির সমর্থকদের উত্তেজনা বাড়তে থাকে৷ গ্যালারি থেকে মাঠে উড়ে আসতে থাকে ইঁট পাটকেল৷ এক পাক ক্রিকেটারের দিকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করা হলেও তিনি কোনও চোট পাননি৷

তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রায় ২০ মিনিট খেলা বন্ধ হয়ে যায়৷ মাঠে কর্মরত এক পুলিশ বলেন, ‘মাঠের একজন খেলোয়াড় তার পাশে ঢিল পড়ার অভিযোগ করলে আম্পায়ার খেলা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ক্রিকেটাররা ড্রেসিং রুম থেকে মাঠে ফেরেন৷যদিও ঘটনায় এ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি৷

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে চার উইকেট হারিয়ে ৩১৬ রান করে পাক দল৷দুই ওপেনার আহমেদ শেহজাদ (৪৪) ও অধিনায়ক আলি (৪৯) পাকিস্তানকে শক্ত মাটি তৈরি করে দেন৷ দুরন্ত পারফর্ম করেন মিডন অর্ডার ব্যাটসম্যানরাও৷মহম্মদ হাফিজের ব্যক্তিগত সংগ্রহ ৫৪৷

সারফারাজ আহমেদ সর্বোচ্চ ৭৭ রান করে ম্যাচের সেরা হন৷শোয়েব মালিক ৪২ ও মহম্মদ রিজওয়ান ৩৫ রানে অপরাজিত থাকেন৷ জবাবে লাহিরু থিরিমানের ৫৬ রানের ইনিংস ছাড়া ক্রিজে কেউই টিকতে পারেননি৷৪১.১ ওভারে ১৮১ রানেই গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা৷ ইয়াসির শাহ ৪টি ও ইমাদ ওয়াসিম এবং আনোয়ার আলি দু’টি করে উইকেট নেন৷