মেইন ম্যেনু

ষষ্ঠ ধাপের নির্বাচনে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ আ.লীগের

ষষ্ঠ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের জন্য ৭২৬টি ইউনিয়নের দলীয় প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগ।

শনিবার দুপুরে ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ইউপি নির্বাচনের সর্বশেষ ধাপের এই তালিকা প্রকাশ করেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল-উল-আলম হানিফ।

সম্প্রতি ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের ভয়ে পালিয়ে থাকতে হয়েছে এবং প্রচার চালাতে পারেননি দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত অনেক প্রার্থী। প্রার্থী বাছাইয়ে ভুলের জন্য এমন হয়েছে কি না জানতে চাইলে হানিফ বলেন, এই সমস্যা প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য নয়। প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন চলছে এর মধ্যে কয়েকটি জায়গায় সমস্যা হয়েছে যা নিতান্তই নগণ্য।

সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, উচ্চ আদালতের বিচারকদের সরকারের ইচ্ছামতো কাজ করাতে তাদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নিতে আইন করা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, বিএনপির জন্মই হয়েছে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে। তারা বারবারই জনগণের বিরুদ্ধে আঘাত এনেছে এবং তারা সব সময়ই জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আদালতে সরকার পক্ষ থেকে আপিল করা হবে। আমরা আশা করছি জনগণের ক্ষমতা জনগণের পক্ষেই যাবে।’

উচ্চ আদালতের বিচারক অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নিতে ২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। বিলটি পাসের পর একই বছরের ২২ সেপ্টেম্বর তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। অসদাচরণের জন্য উচ্চ আদালতের কোনো বিচারককে কীভাবে অপসারণ করা যাবে, সে প্রক্রিয়া নির্ধারণে আরেকটি আইনের খসড়ায় সম্প্রতি সম্মতি দেয় মন্ত্রিসভা।

এদিকে বৃহস্পতিবারই বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ন্যস্ত করে আনা সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করেছেন হাইকোর্টের একটি বিশেষ বেঞ্চ।

সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি আব্দুল মান্নান, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল, সুজিত রায় নন্দী, এনামুল হক শামীম।