মেইন ম্যেনু

সংগীতানুষ্ঠানে টাকার বৃষ্টি

ভারতের গুজরাটে গরু হত্যা বন্ধের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত এক ধর্ম সংগীত এবং পল্লীগীতি গানের অনুষ্ঠানে সংগীতশিল্পী কীর্তিদান গাধভিকে লক্ষ্য করে উৎফুল্ল দর্শক মুঠো মুঠো টাকা ছুড়ে মেরেছে। গণমাধ্যমে প্রচারিত প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায়, দর্শক প্রায় সাড়ে চার কোটি ভারতীয় রুপি পকেট থেকে বের করে গরুর রোগমুক্তি কামনা করে এবং ভারতে সম্প্রতি গরু জবাইয়ের প্রতিবাদ সরূপ বাতাসে ছুড়ে মেরেছে।

গত শুক্রবার গুজরাটের জামনগর জেলার কালাভাদ শহরে ওই গানের অনুষ্ঠানে প্রায় পাঁচ হাজারের ওপর দর্শক উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সংগীতশিল্পী কীর্তিদান গাদভি পরপর কয়েকটি সংগীত পরিবেশন করেন। তার পরিবেশনা চলাকালেই উপস্থিত দর্শকের মধ্যে থেকে কয়েকজন হঠাৎ বাতাসে রুপি উড়াতে থাকেন। দর্শকদের কয়েকজন জানিয়েছেন, তারা গানের আবহে এতটাই বিভোর ছিলেন যে শিল্পীর প্রশংসায় ওই টাকার বৃষ্টি ঝরিয়েছেন।

টাকার বৃষ্টি১অনুষ্ঠানের আয়োজকেরা অনুষ্ঠানের দুইদিন পর ওই স্থান থেকে ছড়ানো টাকা একত্রিত করেন এবং গণনা শেষে জানান ওখানে মোট ৪.৫ কোটি রুপী পাওয়া গেছে। অনুষ্ঠানের মূল শিল্পী গাদভি জানান, আমি আমার সকল ভক্তদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, তারা যেন ওই সব টাকা কোনো দাতব্য প্রতিষ্ঠানে দান করে দেন। তিনি ওই অনুষ্ঠানের মূল আয়োজক কালাভাদ সেবা সমিতির সকল ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে বলেন তারা যেন ওই ৪.৫ কোটি টাকা মানুষের সেবায় দান করে দেন।

ওই সমিতির প্রধান লন্ডন প্রবাসী নীলেশ শাখিয়া দেশে আসার কয়েকদিনের মাথায় তিনি ওই সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করেন। নীলেশ জানান, ভারতে সম্প্রতি গরু জবাইয়ের প্রতিবাদে তিনি ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। হিন্দু ধর্মে গরুর বিশেষ তাৎপর্য বিদ্যমান। তাই নীলেশ চান সবাই যেন এ বিষয়ে বুঝতে সক্ষম হন।

ওই অনুষ্ঠানের অন্যতম আয়োজক রমেশ প্যাটেল গণমাধ্যমকে জানান, সংগৃহীত টাকার একটি উল্লেখ্যযোগ্য অংশই ভারতে গরু জবাই নিষিদ্ধ করা এবং গরুর নিরাপত্তা বিধানের কাজে খরচ করা হবে এবং বাকি টাকা দাতব্য প্রতিষ্ঠানে মানুষের কল্যাণে খরচ করা হবে।

অনুষ্ঠানের পরপরই মঞ্চের আসপাশে প্রচুর ভারতীয় একহাজার, পাঁচশত এবং একশত রুপির নোট ছড়িয়ে ছিটিয়ে পরে থাকতে দেখা যায়।

গত মাসে কীর্তিদান গাদভি গুজরাটের সেরা সংগীত শিল্পীর পুরস্কার পান। সামনের মাসে তার একটি গানের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কানাডায় যাওয়ার কথা রয়েছে।