মেইন ম্যেনু

সংসার ভাঙ্গলেও দুইজন দুইজনের হৃদয়েই আছে !

আরফিন রুমি সংগীত জগতে খুব অল্প সময় উঠে আসা এক তরুণ কন্ঠশিল্পী। বার বার আলোচনা আর সমালোচনা যার পিছু ছাড়ে না। আরফিন রুমি ২০০৮ সালে প্রথম বারের মতো পারিবারিত ভাবে বিয়ে করেন লামিয়া ইসলাম অনন্যাকে। সংসার জীবন চলতে থাকে ভালো ভাবেই। তবে হঠাৎ করে আরফিন তার সুখের সংসারে ভেঙ্গে ২০১৩সালে ২য় বারের মতো বিয়ে করেন আমেরিকায় বসবাসরত কামরুন্নেসা নামে তরুনীকে। তবে ২য় বিয়ে করার আগে আরফিন রুমি প্রথম স্ত্রীকে পারিবারিক ভাবে ডিভোর্স দেন।
এদিকে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি আরেফিন রুমি তার ফেসবুকের কাভার ফটো পরিবর্তন করে স্ত্রী-সন্তানের সঙ্গে তার তোলা একটি ছবি দিয়েছেন। কভার ফটো পরিবর্তনের সময় এ ছবিটি আবার ট্যাগ করেছেন স্ত্রী কামরুন্নেসার ফেসবুক আইডিতে।

1_23
এদিকে রুমির স্ত্রী কামরুন্নেসাও গতকাল তার ফেসবুকের কাভার ফটো পরিবর্তন করে আরেফিন রুমির একটি ক্যাসেটের কাভার দিয়েছেন। ছবিটি পোস্ট দিয়ে তিনিও আরেফিন রুমিকে ট্যাগ করেছেন।
2_31
বিষয়টি জানতে আরফিন রুমিকে মুঠফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমার ভালো লাগা থেকে আমি দিয়েছি। এখানে তেমন কোন কিছু নাই।

কামরুন্নেসার কাছে ফেসবুকে জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দেননি।

উল্লেখ্য, ২য় স্ত্রী কামরুন্নেসা পুত্র আয়ানসহ গত সাত মাস ধরে অবস্থান করছেন আমেরিকায়। সেখান থেকে গত মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশে আসার উদ্দেশ্যে আমেরিকা থেকে রওয়ানা হয়েছেন। এদিকে মঙ্গলবার রাতেই নিরাপত্তা অনুভব না করায় রুমির পক্ষ থেকে মোহাম্মদপুর থানায় একটি জিডিও করেছেন তার মা।

আনুষ্ঠানিকভাবে ডিভোর্সের বিষয়টিও থানায় অবহিত করা হয়। গত মঙ্গলবার রুমির আইনজীবি আবদুর রহিম কামরুন্নেসার বাবাকে ফোন করে ডিভোর্স লেটার পাঠানোর বিষয়টি সরাসরি অবগত করেন। মানসিক নির্যাতন, আগের স্বামীর সঙ্গে মেলামেশা, বেপরোয়া চলাফেরা ও কাউকে তোয়াক্কা না করাসহ বিভিন্ন কারণে কামরুন্নেসাকে ডিভোর্স দিয়েছেন বলে জানান আরফিন রুমি।