মেইন ম্যেনু

সঞ্জিতের বোলিং নিষিদ্ধ

কাজে দিল না বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ মিজানুর রহমানের ‘আত্মবিশ্বাস’। বাংলাদেশ কর্মকর্তাদের চোখে সঞ্জিত সাহার বোলিং বৈধ মনে হলেও আইসিসি জানিয়ে দিয়েছে, তার বোলিং অ্যাকশন ‘অবৈধ’।

বাংলাদেশ যুব দলের অন্যতম সেরা বোলার সঞ্জিত। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে দলের সাফল্যে এই অফ স্পিনারের ছিল বড় অবদান। কিন্তু গত বুধবার চট্টগ্রামে যুব বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রশ্নবিদ্ধ হয় তার বোলিং অ্যাকশন।

প্রথম ম্যাচের পর দলের কোচ মিজানুর রহমান বাবলু জানান, তারা জেনেশুনেই সঞ্জিতের অ্যাকশন বদল করেননি। তার বোলিং অ্যাকশন খোলা চোখে সন্দেহজনক বলে মনে হলেও, আসলে সমস্যার কিছু নেই।

সঞ্জিতের বোলিং অ্যাকশনের ভিডিও বিশ্লেষণ করেছেন আইসিসির বিশেষজ্ঞ প্যানেল। রোববার আইসিসির ওয়েবসাইটে জানানো হয়, অবৈধ প্রমাণিত হয়েছে সঞ্জিতের বোলিং অ্যাকশন।

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের টিম ম্যানেজমেন্টকে অবশ্য শনিবার রাতেই জানানো হয়েছে সঞ্জিতের খবরটি। রোববার স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ম্যাচের একাদশে তাই রাখা হয়নি তরুণ স্পিনারকে। তার বদলে দলে সুযোগ পেয়েছেন আরেক স্পিনার আরিফুল ইসলাম জনি।

ভিডিও বিশ্লেষণ করে আইসিসির বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানিয়ে দেয়, ১৫ ডিগ্রির বৈধ সীমার অনেকটাই ছাড়িয়ে যায় সঞ্জিতের অ্যাকশন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সেটি ছাড়িয়ে যায় দ্বিগুণ, এমনকি তিনগুণ পর্যন্ত। আপাতত তাই ল্যাবে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দেওয়ারও প্রয়োজন নেই সঞ্জিতের।

নিয়ম অনুযায়ী এখন আন্তর্জাতিক যুব ক্রিকেট ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিং করতে পারবেন না সঞ্জিত। অ্যাকশন শোধরানোর পর আবেদন করতে হবে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষার জন্য। আইসিসি অনুমোদিত ল্যাবে পরীক্ষায় অ্যাকশন বৈধ প্রমাণ হলেই কেবল এই অফ স্পিনার আবার বোলিং করতে পারবেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে।

প্রথম ম্যাচে ৮ ওভারে ৩০ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন সঞ্জিত। তবে এমনিতে দলের অন্যতম সেরা বোলার ১৮ বছর বয়সী এই অফ স্পিনার। যুব ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডও তার।